kalerkantho

সোমবার  । ১৬ চৈত্র ১৪২৬। ৩০ মার্চ ২০২০। ৪ শাবান ১৪৪১

মির্জাপুরে বন কর্মকর্তাদের চাঁদাবাজি

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গোড়াই-সখীপুর সড়কের বাঁশতৈল তালতলা এলাকায় বন বিভাগের লোকজন বনজ সম্পদ (কাঠ) চেকিংয়ের নামে যানবাহন থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বাঁশতৈল রেঞ্জ কর্মকর্তার সহযোগিতায় রেঞ্জ অফিসের সামনে বাঁশতৈল সদর বিটের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রতিদিন কাঠ চেকিংয়ের নামে এই টাকা তুলছেন। এ নিয়ে ওই সড়কে চলাচলরত যানবাহনের চালক ও স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার বাঁশতৈল রেঞ্জের আওতায় প্রায় ১৫ হাজার একর সরকারি বনভূমি রয়েছে। বনজ সম্পদ রক্ষায় সরকার জনবল নিয়োগের পাশাপাশি গোড়াই-সখীপুর সড়কের মির্জাপুর উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের হাঁটুভাঙ্গা বাজারসংলগ্ন সরকারি গেজেটভুক্ত বনজদ্রব্য পরীক্ষণে ফাঁড়ি স্থাপন করা হয়। বনজ সম্পদ রক্ষায় বন বিভাগের হাঁটুভাঙ্গা বিটের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এই সড়কে চলাচলরত যানবাহনে থাকা কাঠ চেক করে থাকেন।

এদিকে বাঁশতৈল রেঞ্জ অফিসের সামনে তালতলা নামক স্থানে রেঞ্জ কর্মকর্তার সহযোগিতায় অবৈধভাবে চেকপোস্ট বসানো হয়। ওই চেকপোস্টে সদর বিট কর্মকর্তা জাহেদ হোসেন, ফরেস্ট গার্ড আবু তালেব, আব্দুল মমিন, সন্তোষ কুমার মণ্ডল, সরকারি ওয়াসার রফিক মিয়া যানবাহন থামিয়ে বনজ সম্পদ (কাঠ) চেকিংয়ের নামে যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করছেন। তাঁদের সহযোগিতা করছেন বাঁশতৈল নয়াপাড়া গ্রামের মোস্তফা মিয়া। যানবাহন থেকে টাকা নেওয়ার বিষয়টি ওই সড়কে চলাচলরত কাঠের তৈরি আসবাবপত্র, কাঠগাছ ও লাকরিভর্তি যানবাহনের চালক ও স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা