kalerkantho

সোমবার । ২০ জানুয়ারি ২০২০। ৬ মাঘ ১৪২৬। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

বড়াইগ্রামে কাঁটাখালী খাল নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

নাটোর প্রতিনিধি   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের গড়মাটি এলাকার সংস্কার করা তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের কাঁটাখালী খাল দখলের চেষ্টা করছে স্থানীয় দুটি গ্রুপ। খালটি নিজেদের আওতায় আনতে দুটি পক্ষ বিভিন্ন ধরনের কৌশল অবলম্বন করছে বলে পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, একটি পক্ষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের ভুয়া আদেশনামা তৈরি করে খাল দখলের চেষ্টা করছে। অন্য পক্ষ গ্রাম প্রধানদের সঙ্গে নিয়ে খাল দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ। খাল নিয়ে দুই পক্ষের এই টানাটানি যেকোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে বলে ধারণা করছেন এলাকাবাসী।

গত রবিবার সকালে সরেজমিনে উপজেলার গড়মাটি কাঁটাখালী খাল এলাকায় গেলে স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, গ্রাম পরিচালনা কমিটি খালটি নিজেদের দখলে রাখতে চায়। অন্যদিকে সরকারি নিবন্ধন করা গড়মাটি মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সদস্যরা খালটি দখল ও এর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মৌখিক অনুমতি পান বলে দাবি করেন।

গ্রাম পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবু আসলাম ওরফে বাবুল ডাক্তার জানান, কাঁটাখালী খালটি এত দিন গ্রাম পরিচালনা কমিটি দেখভাল করত। কিন্তু হঠাৎ করে গড়মাটি মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির লোকজন খালটি দখল ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ইউএনও অফিস তাদের দিয়েছে বলে জানায়। পরে ইউএনও অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ ধরনের দায়িত্ব কোনো সমিতি বা কাউকে দেওয়া হয়নি।

মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুস সামাদ বলেন, ‘আমাদের হেয় করে ইউএনওর কাছে অপরাধী করতে কে বা কারা ভুয়া আদেশনামা তৈরি করে তা সাংবাদিকদের দিয়েছেন তা জানি না।’ তিনি এ জাতীয় ঘৃণ্য কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করে ইউএনওর কাছে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করেন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা