kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফরিদপুরে বিদ্যুৎ সংযোগে অনৈতিক লেনদেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফরিদপুরে বিদ্যুৎ সংযোগে অনৈতিক লেনদেন

ফরিদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের কাজে খুঁটি প্রতিস্থাপনের নামে একটি চক্র মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অফিস ম্যানেজ করার কথা বলে এ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ ঘটনায় তারা বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগও জানিয়েছে।

ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা গেছে, শতভাগ বিদ্যুতায়ন প্রকল্পসহ মোট পাঁচটি প্রকল্পে জেলায় পল্লী বিদ্যুতের প্রায় পাঁচ হাজার ৫৯ কিলোমিটার লাইন সম্প্রসারণ ও খুঁটি স্থাপনের কাজ চলছে। এর মধ্যে দুটি প্রকল্পের কাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। বোয়ালমারী উপজেলার চিতারবাজার এলাকায় পল্লী বিদ্যুতের ইউআরআইডিএস প্রকল্পের আওতায় কাজ করছে মেসার্স মির্জা আবু বকর নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

বোয়ালমারীর দাদপুর ইউনিয়নের চিতারবাজারের ব্যবসায়ী মোহসিন মোল্লা অভিযোগ করেন, ওই প্রতিষ্ঠানের সুপারভাইজর আব্দুর রাজ্জাক ও ফোরম্যান আল-আমীন তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ওপর দিয়ে টানানো তার সরাতে ৪০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। সেই টাকা না দেওয়ায় তাঁরা সঞ্চালন লাইনের তার কেটে ঝুলিয়ে রাখেন। পরে বিদ্যুৎ সংযোগ দিলে তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসহ পাঁচটি পাটের গুদামে আগুন লাগে। তাতে কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়।

এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তরা ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক ও পল্লী বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করে লিখিত অভিযোগ জানান। পরে পল্লী বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলীকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রশাসন।

চিতারবাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. জামালউদ্দিন বলেন, ঘুষের টাকা না পেয়ে ইচ্ছাকৃতভাবেই এ আগুন লাগানো হয়েছে।

ফরিদপুরের ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক এ বি এম মমতাজউদ্দিন চিতারবাজারের অগ্নিকাণ্ডের বিষয়ে প্রতিবেদনে বলেন, ঠিকাদারের কাজের সময় অসতর্কতায় তার ছেঁড়া ছিল। পরে বিদ্যুৎ সংযোগ দিলে লাইনে আগুন লাগে।

ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মুজিবুর রহমান বলেন, ‘এমনটি যে হচ্ছে না, তা নয়। তবে এর সঙ্গে স্থানীয় লোকজনই বেশি জড়িত। তারা আমাদের সাইনবোর্ড হিসেবে ব্যবহার করে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা