kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

ধামরাইয়ে এসিড বর্জ্যে ফের মরল খামারের মাছ

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকার ধামরাইয়ের বেলীশ্বরে অবৈধ ব্যাটারি ও সিসা তৈরির কারখানার এসিড বর্জ্যে পাশের খামারের মাছ মরে গেছে বলে অভিযোগ। এর আগেও একই ঘটনা ঘটেছিল।

ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের অভিযোগ, প্রায় পাঁচ মাস আগে ওই কারখানার এসিড বর্জ্যে তাদের খামারের কয়েক লাখ টাকার মাছ মরে যায়। এ নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দেওয়ায় তাদের আংশিক ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য হয়েছিল কারখানা কর্তৃপক্ষ। এবারও একই কারণে তাদের প্রায় এক লাখ টাকার মাছ মরে গেছে। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ কোনো কর্ণপাত করছে না। তাদের স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত করে চলেছে ওই অবৈধ কারখানা। অবিলম্বে কারখানাটি বন্ধের দাবি জানান ক্ষতিগ্রস্তরা।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই কারখানার তরল দূষিত বর্জ্য পাশের জমিতে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতি করছে। এখন পানিতে নামলেই শরীর চুলকায়। এসিডের বিষাক্ত গন্ধে শিশুদের শ্বাসকষ্টও বেড়ে গেছে। শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে বৃদ্ধদের। বাতাসের ঝাঁজালো গন্ধে আশপাশের বাসিন্দাদের প্রাণ ওষ্ঠাগত। তারাও কারখানাটি বন্ধের দাবি জানায়।

এক মাস আগে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি-এসি ল্যান্ড) ওই কারখানা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। তখন পরিবেশের ছাড়পত্রসহ অন্য কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি কারখানা কর্তৃপক্ষ। এ বিষয়ে এসি ল্যান্ড অন্তরা হালদার বলেন, ‘কারখানার কোনো সাইনবোর্ড নেই। বর্জ্য পরিশোধনাগার নেই। তাদের এক মাসের সময় দেওয়া হয়েছিল বৈধ কাগজপত্র দেখাতে। কিন্তু এক মাস পেরিয়ে গেলেও তারা কোনো কাগজপত্র দেখাতে আসেনি।’

ধামরাই থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, ‘প্রায় পাঁচ মাস আগে ওই কারখানার বর্জ্যে স্থানীয় খামারিদের মাছ মরে যাওয়ার ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছিলাম। ওই সময় উভয় পক্ষকে ডাকা হয়েছিল। কিছুটা হলেও ক্ষতিপূরণ দিয়েছে কারখানা কর্তৃপক্ষ।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা