kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

ভাঙনের কবলে জাপা

নবীগঞ্জে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীর গণফোরামে যোগদান

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভাঙনের কবলে জাপা

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর জাতীয় পার্টি (জাপা) ভাঙনের মুখে পড়েছে। হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ মুনিম চৌধুরী বাবুর সাংগঠনিক কার্যক্রমে ব্যর্থতার কারণেই দল ছেড়ে গণফোরামে যোগদান করছেন নেতাকর্মীরা। এরই মধ্যে কয়েক দফায় জাতীয় পার্টি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে অর্থনীতিবিদ ড. রেজা কিবরিয়ার হাতে ফুলে তোড়া দিয়ে যোগদান করেছেন। এ ছাড়া স্থানীয় গণফোরামের নেতাদের মাধ্যমে যোগদানপ্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

সাংগঠনিক সূত্রে জানা যায়, আরো শতাধিক নেতাকর্মী গণফোরামে যোগ দিতে যাচ্ছেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর দলটির বর্তমান কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গৃহবিবাদে জড়িয়ে পড়াসহ স্থানীয় নেতাদের ব্যর্থতার কারণে দলের ওপর আর আস্থা রাখতে পারছেন না নেতাকর্মীরা।

অন্যদিকে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন ও গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়ার ওপর আস্থা বাড়ায় এই দলে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিচ্ছেন তাঁরা।

এদিকে নবীগঞ্জে রাজনৈতিক অঙ্গনে গুঞ্জন রয়েছে, জাতীয় পার্টি থেকে গণফোরামে নেতাকর্মীদের যোগদানের নেপথ্যে কলকাঠি নাড়ছেন নবীগঞ্জ পৌর জাতীয় পার্টির সভাপতি ও উপজেলা জাতীয় ছাত্রসমাজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মুরাদ আহমদ। যদিও অভিযোগের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তিনি।

গণফোরামে যোগদান করা নেতাদের মধ্যে রয়েছেন নবীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সহসভাপতি আতাউর রহমান কাপ্তান, পৌর জাতীয় পার্টির সহসভাপতি এম এ খালেক, সদর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, পৌর জাতীয় পার্টির সহসভাপতি আব্দুল আজিজ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফতেহ আলম প্রমুখ। জানা যায়, ড. রেজা কিবরিয়ার রাজধানীর গুলশানের বাসভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করেন তাঁরা।

জাতীয় পার্টি থেকে গণফোরামে যোগদানকারী নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে তাঁরা জানান, এরশাদ ছিলেন জাতীয় পার্টির মূল শক্তি। তিনি মারা যাওয়ার পর কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গৃহবিবাদে জড়িয়ে পড়েছে।

তা ছাড়া স্থানীয় নেতৃত্বের ব্যর্থতার কারণে দলের ওপর আর আস্থা রাখতে পারছেন না নেতাকর্মীরা। তাই সংগত কারণে জাতীয় পার্টির রাজনীতির মাধ্যমে নবীগঞ্জ-বাহুবলে মানুষের কল্যাণে অর্থবহ ভূমিকা পালন করার সুযোগ নেই।

নেতাকর্মীরা আরো জানান, সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম শাহ এ এম এস কিবরিয়া নবীগঞ্জের কৃতী সন্তান। তাঁর যোগ্য সন্তান অর্থনীতিবিদ ড. রেজা কিবরিয়া।

গত সংসদ নির্বাচনে নবীগঞ্জ-বাহুবল আসনে সংসদ নির্বাচনেও অংশ নিয়ে এলাকার মানুষের আস্থাভাজন হয়েছেন তিনি। তাই তাঁর সঙ্গে রাজনীতি করার জন্যই গণফোরামে যোগ দিচ্ছেন তাঁরা।

এ ব্যাপারে গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘সুযোগ পেলে নবীগঞ্জ-বাহুবলবাসীর উন্নয়নে ও প্রত্যন্ত জনপদের মানুষের পাশে থাকতে চাই।’

এ সময় গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া দলে সদ্য যোগদান করা নেতাকর্মীদের স্বাগত জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা