kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

নন্দীগ্রামে বয়াম ভাঙায় স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি   

২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নন্দীগ্রামে বয়াম ভাঙায় স্ত্রীর মাথা ন্যাড়া

অসাবধানতাবশত হরলিকসের বয়াম ভেঙে ফেলার ‘অপরাধে’ স্ত্রীকে মারধরের পর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ট্রাকচালক স্বামীর বিরুদ্ধে। গত বৃহস্পতিবার বগুড়ার নন্দীগ্রামের ইউসুবপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার অভিযুক্ত স্বামী মোরশেদুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মাত্র ৯ মাস আগে নাটোরের সিংড়ার পাঁচপাকিয়া গ্রামের নিজাম উদ্দিন ও মঞ্জুয়ারা বেগমের মেয়ে মার্জিয়া খাতুন রূপালীর সঙ্গে ইউসুবপুরের মোশারফ হোসেনের ছেলে মোরশেদুলের বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় মোরশেদুলকে দেড় লাখ টাকা যৌতুক দেওয়া হয়। বিয়ের পর পাকা বাড়ি তৈরির কাজ শুরু করেন তিনি। এ কারণে স্ত্রীর কাছে আরো দুই লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু টাকা না দেওয়ায় স্বামী ও শাশুড়ি মিলে রূপালীকে শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন শুরু করেন।

গত বুধবার দুপুরে রূপালীর হাত থেকে হরলিকসের বয়াম পড়ে ভেঙে যায়। এ নিয়ে শাশুড়ির সঙ্গে তাঁর ঝগড়া হয়। মোরশেদুল বাড়ি ফিরে ঘটনাটি শুনে বৃহস্পতিবার দুপুরে স্ত্রীকে মারধর করেন। এরপর তাঁকে বাথরুমে নিয়ে গিয়ে মাথা ন্যাড়া করে দেন। এ সময় রূপালীর শাশুড়ি বেবী খাতুন বাড়িতে ছিলেন না। পরে বাড়ি ফিরে ছেলের বউকে ন্যাড়া অবস্থায় দেখে চুলগুলো ফেলে দেন তিনি। একই সঙ্গে ছেলের বউকে ঘরে আটকে রাখেন। তখন মোবাইল ফোনে ঘটনাটি মা-বাবাকে জানান রূপালী। গতকাল সকালে মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে এসে গ্রামের লোকজনের সহযোগিতায় মেয়েকে উদ্ধার করেন মা মঞ্জুয়ারা। পরে তাঁদের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ মোরশেদুলকে আটক করে। নন্দীগ্রাম থানার ওসি মোহাম্মদ শওকত কবীর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা