kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পীরগাছা আ. লীগের সম্মেলন কাল

ভোটে নেতা চায় তৃণমূল

পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি   

৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাড়ে ছয় বছর পর রংপুরের পীরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ও ত্রিবার্ষিক সম্মেলন আগামীকাল রবিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সম্মেলন ঘিরে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে উৎসাহ-উদ্দীপনা। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী হওয়ায় কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করার দাবি করেছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ইতিমধ্যে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে কাউন্সিলর নির্বাচন শেষ হয়েছে। প্রতি ইউনিয়নে ৩১ জন কাউন্সিলর নির্বাচন করা হয়। তা ছাড়া উপজেলা কমিটিতে ৭১ জন কাউন্সিলর রয়েছেন। ৩৫০ জন কাউন্সিলর নির্বাচন করা হলেও দুজনের আকস্মিক মৃত্যুতে ৩৪৮ জন কাউন্সিলর এবারের সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর পীরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হলেও শেষ পর্যন্ত বাতিল করা হয়। পরবর্তী সময়ে ১০ নভেম্বর সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

তৃণমূল নেতাকর্মীদের আশা, এবার গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটে নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে। তবে নির্বাচনের পরিবর্তে শেষ পর্যন্ত সমঝোতার মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করা হতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন।

এবারের সম্মেলনে সভাপতি পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি আব্দুল হাকিম সরদার ও বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক তছলিম উদ্দিন প্রার্থী হবেন বলে শোনা যাচ্ছে। সাধারণ সম্পাদক পদে শোনা যাচ্ছে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ মিলন ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুল হক লিটনের নাম।

সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর থেকে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা কাউন্সিলরদের মন জয় করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তাঁরা নানা যুক্তি-তর্কের মাধ্যমে কাউন্সিলরদের কাছে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা তুলে ধরার চেষ্টা করছেন।

উপজেলার কান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাইফুল ইসলাম খান ইকবাল বলেন, ‘আমরা ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচন করতে প্রস্তুত। প্রার্থী যিনিই হন, দলের ত্যাগী নেতাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচন করব।’

কৈকুড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রংপুর জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ফিরোজ হোসেন মিয়া বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর সম্মেলন ঘিরে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে। আশা করছি, তৃণমূলের নেতাকর্মীরা গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সঠিক নেতা নির্বাচন করবেন।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ মিলন বলেন, ‘কাউন্সিলরদের ভোটেই সভাপতি-সম্পাদক নির্বাচিত হবেন। সিলেকশন কমিটি হবে না।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাকিম সরদার বলেন, ইতিমধ্যে সম্মেলনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। অতিথিদের উপস্থিতিতে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা