kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ছাতকে সংঘর্ষে নিহত ১ আহত দুই শতাধিক

ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ছাতকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে দুই শতাধিক ব্যক্তি আহত ও একজন নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত ২০ জনকে ভর্তি করা হয়েছে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। চিকিৎসাধীন ইয়াকুব আলী নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের সাদা ব্রিজ এলাকায় এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে সিলেট-সুনামগঞ্জ ও ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত মঙ্গলবার রাতে রেলওয়ের লালপুল এলাকায় মদ্যপ অবস্থায় শিবনগর গ্রামের প্রতিপক্ষদের উদ্দেশ করে গালাগাল করতে থাকেন দিঘলী গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে ফয়সল আহমদ। গ্রামের লোকজনকে গালাগাল করতে বাধা দেন শিবনগর গ্রামের সিরাজ মিয়ার ছেলে সাজু মিয়া ও স্থানীয় দোকানি ফরিদ মিয়া। এ সময় তাঁদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। বুধবার বিকেলে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় যাওয়ার পথে সাদা ব্রিজ এলাকায় গাড়ি থেকে নামিয়ে সাজু মিয়াকে বেধড়ক মারধর করেন ফয়সল ও তাঁর সহযোগীরা। একপর্যায়ে স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে গাড়ি তুলে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে দেয়। এ ঘটনার জের ধরে বুধবার সন্ধ্যায় শিবনগর ও দিঘলী গ্রামবাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তুমুল সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দুই ঘণ্টাব্যাপী দফায় দফায় সংঘর্ষ চলাকালে কয়েক রাউন্ড গুলি বিনিময় হলে গোটা এলাকা পরিণত হয় রণক্ষেত্রে। রাতে গুরুতর আহত শিবনগর গ্রামের খুরশিদ আলীর ছেলে ইয়াকুব আলী (৩০) সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা যান।

এ বিষয়ে ছাতক থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা