kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৪ রবিউস সানি     

তালতলীতে জমি নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৪

এ ঘটনায় স্থানীয়রা শুভ শিকদার ও অজয় দুয়ারী নামে দুজন সন্ত্রাসীকে ধরে পুলিশে দিয়েছে

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরগুনার তালতলী উপজেলা শহরের টিঅ্যান্ডটি রোডের দুই সংখ্যালঘু পরিবারের মধ্যে জমিজমা নিয়ে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের গর্ভবতী মহিলাসহ ১৪ জন আহত হয়েছে। তাদের আমতলী ও বরগুনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে দুজনকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তালতলী থানা শহরের টিঅ্যান্ডটি রোডসংলগ্ন (গ্রামীণ ব্যাংক) দুই সংখ্যালঘু বাসিন্দা বিমল সাধুর সঙ্গে তাঁর প্রতিবেশী বিপ্লব শিকদারের দীর্ঘ দুই দশক ধরে ২ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে, যা নিয়ে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার সালিস দরবার হয়েছে। ওই জমি বিপ্লব শিকদার পাবেন না বলে একাধিকবার সালিসে রায় দেওয়া হলেও তিনি তা মানেন না বলে অভিযোগ বিমল সাধুর।

এরই জের ধরে গতকাল বুধবার সকাল ১০টার দিকে বিপ্লব শিকদার তাঁর শ্যালক সমীর চন্দ্র হাওলাদার ও সঞ্জীব চন্দ্র হাওলাদারের নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী এনে জমি দখল করে ঘর তুলতে যান। এতে বিমল সাধু ও তাঁর পরিবারের লোকজন বাধা দেয়। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হলে ১৪ জন আহত হয়। তারা হলো গর্ভবতী সাথী রানী, বিমল সাধু, অমল, শুখরঞ্জন, বিশ্বজিৎ, বাসুদেব, দীপালি রানী, আরতি রানী, লিপি রানী, সোনালক্ষ্মী, বিপ্লব শিকদার, সমীর হাওলাদার, সঞ্জীব হাওলাদার ও সংগীতা। আহতদের প্রথমে তালতলী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বরগুনা জেলা সদরের জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় স্থানীয়রা শুভ শিকদার ও অজয় দুয়ারী নামে দুজন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীকে ধরে পুলিশে দিয়েছে। আটতদের বাড়ি বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলায়।

এ বিষয়ে তালতলী থানার ওসি শেখ শাহিনুর রহমান বলেন, ‘সংবাদ পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। এখনো অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্থানীয়রা দুজনকে ধরে থানায় সোপর্দ করেছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা