kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

বাগেরহাট সরকারি মহিলা কলেজ

অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ১৬ অভিযোগ

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ১৬ অভিযোগ

বাগেরহাট সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. এস এম রফিকুল ইসলাম ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগ তুলেছেন শিক্ষকরা।

এ বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সম্প্রতি জেলা প্রশাসক, শিক্ষামন্ত্রী, শিক্ষাসচিব এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে আবেদন করেছেন তাঁরা। কলেজটির ৩২ জন শিক্ষকের মধ্যে ২৫ জনই এতে স্বাক্ষর করেছেন।

অভিযোগগুলোর মধ্যে আছে কলেজ ক্যাম্পাস থেকে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া ১০ থেকে ১৫টি সরকারি গাছ কেটে বিক্রি, পাবলিক পরীক্ষা ও কলেজের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষার প্রত্যেক কমিটির কাছ থেকে বাড়ি ভাড়ার দোহাই দিয়ে প্রচুর টাকা আদায়, প্রতিবছর টেন্ডার কমিটির কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা তুলে ব্যক্তিগত কাজে ব্যয়, কলেজের কর্মচারী ও পিয়নকে বাসায় ডেকে নিয়ে পারিবারিক কাজ করানো, অবৈধ কাজে সহায়তা না করলে শিক্ষক-কর্মচারীদের হয়রানি করা, শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে জোর করে উপঢৌকনসহ নগদ টাকা নেওয়া, অধ্যক্ষের স্ত্রীর কথায় কলেজের সব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হওয়া, বিভিন্ন নিয়মের কথা বলে ছাত্রীদের কাছ থেকে রসিদ ছাড়া অতিরিক্ত অর্থ আদায়, শিক্ষকদের কাছ থেকে জোর করে স্বাক্ষর নিয়ে ভ্রমণ বিল তুলে আত্মসাৎ, দুর্নীতি-অনিয়মের মাধ্যমে অর্জিত টাকা দিয়ে নিজের ও পরিবারের সদস্যদের নামে বাগেরহাট এবং খুলনাসহ বিভিন্ন এলাকায় সম্পদের পাহার গড়ে তোলা, কলেজের পুকুরের মাছ ও বিভিন্ন ফল বিক্রি করা, অনৈতিকভাবে স্বামীর প্রভাবে কলেজের সম্পদ নিয়ন্ত্রণ করেন অধ্যক্ষের স্ত্রী, কলেজের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী খালেদা খাতুনকে মারধর, জাতীয় পরীক্ষাগুলোতে সিক বেডের নামে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে প্রচুর টাকা আদায়, বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নিয়োগে ডিজির প্রতিনিধি হিসেবে চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নেওয়া এবং কলেজের পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে সরকারি পরিপত্রের বিধিমালার বাইরে অতিরিক্ত টাকা আদায়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. মামুুনুর রশীদে বলেন, ‘আমরা যাচাই-বাছাই করে দেখব শিক্ষকদের অসন্তোষের বিষয়টি কী।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা