kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভাঙ্গুড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

চিকিৎসক এক রোগী অনেক

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি   

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দীর্ঘদিন ধরে মাত্র একজন মেডিক্যাল অফিসার দিয়ে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেবা কার্যক্রম চলছে। ফলে উপজেলার দেড় লক্ষাধিক মানুষ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে উপজেলা সদরের অননুমোদিত সব ক্লিনিকে ছুটছে তারা। আর এ সুযোগে ক্লিনিকগুলোর মালিকরা রোগ নির্ণয়ের অজুহাতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা বলে রোগীদের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ৩১ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিকে ২০১৬ সালে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম তিনতলা বিশিষ্ট অত্যাধুনিক দুটি ভবনের উদ্বোধন করেন। কিন্তু পর্যাপ্ত লোকবলের অভাবে প্রায় দুই বছর পর ভবনগুলো ব্যবহার করা শুরু হয়। পরে আরো এক বছর পেরিয়ে গেছে; কিন্তু এখনো পর্যাপ্ত লোকবল নেই। এমনকি গত দুই বছরে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একই সঙ্গে দুই থেকে তিনজনের বেশি চিকিৎসক পাওয়া যায়নি। ফলে চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। এ ছাড়া অপারেশন থিয়েটার (ওটি) ও রোগ নির্ণয়ের জন্য বিভিন্ন সরঞ্জাম দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে আছে।

এ অবস্থায় একমাত্র মেডিক্যাল অফিসার ডা. আয়েশা মর্তুজা ও উপসহকারী মেডিক্যাল অফিসারদের প্রতিদিন কয়েক শ রোগীকে সেবা দিতে হয়। চিকিৎসক সংকট ও রোগীদের ভিড়ের কারণে অনেকেই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ফিরে গিয়ে ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়। অথচ এখানে ১০ জন মেডিক্যাল অফিসার ও ১০ জন কনসালট্যান্ট থাকার কথা। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হালিমা বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিকিৎসক চেয়ে বারবার আবেদন করা হয়েছে। তার পরও চিকিৎসক পাওয়া যাচ্ছে না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা