kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

দশ বছর পর অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ!

মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দায়িত্ব থেকে সরে আসার ১০ বছর পর মসজিদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করে পরিবার ও ব্যক্তিগত ইমেজ কলুষিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্লিন ইমেজ নিয়ে সমাজে চলা মানুষটি হঠাৎ অপপ্রচার দেখে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্যরা কালের কণ্ঠ’র প্রতিনিধির কার্যালয়ে এসে জানিয়েছেন এবং ওই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। এ ঘটনা ঘটেছে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার কামাল্লা ইউনিয়নের নেয়ামতপুর গ্রামে। ঘটনার শিকার মো. আলীমুদ্দিন সরকার ওই গ্রামের মৃত মো. অহিদ আলী সরকারের ছেলে।

ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্যরা জানান, মসজিদের পূর্ণাঙ্গ কোনো কমিটি না থাকায় শাহ আলম মনু মিয়া ১৯৯০ থেকে ২০০৯ সালের ১৫ আগস্ট পর্যন্ত সভাপতি ও ক্যাশিয়ারের দায়িত্বে ছিলেন। মনু মিয়া লিখতে পারতেন না। তাই মসজিদের আয়-ব্যয় হিসাব-নিকাশ লেখার দায়িত্বে ছিলেন আলীমুদ্দিন সরকার। ২০০৯ সালের ১৫ আগস্ট আলীমুদ্দিন হিসাবের খাতা সভাপতি মনু মিয়ার কাছে বুঝিয়ে দিয়ে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেন। পরে মনু মিয়া সভাপতি ও তাঁরই ছোট ভাই জব্বার মিয়া ক্যাশিয়ার হিসেবে মসজিদের দায়িত্ব নেন। এক বছর আগে মসজিদের সভাপতি মনু মিয়া মারা যান। আলীমুদ্দিন দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেওয়ার প্রায় ১০ বছর পর এবং তৎকালীন সভাপতি মনু মিয়ার মৃত্যুর এক বছর পর কোনো ধরনের অডিট বা তদন্ত ছাড়া টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রহস্যজনক ও মানহানিকর। তাই প্রশাসনের কাছে নিরপেক্ষ তদন্ত ও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন তাঁরা।

আলীমুদ্দিনের ছেলে আব্দুল্লাহ-আল নোমান বলেন, “গত ৮ অক্টোবর কুমিল্লা থেকে প্রকাশিত কিছু পত্রিকা ও অনলাইনে ‘মুরাদনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।” সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত দাবি করে তিনি বলেন, ‘এই খবর পড়ে আমার বাবা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আমাদের পরিবারের সম্মানহানি করার লক্ষ্যে একটি কুচক্রী মহল সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দিয়ে এ সংবাদ প্রকাশ করেছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা