kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বড়াইগ্রামে এসটিসির অবৈধ কার্যক্রম

নাটোর প্রতিনিধি   

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নাটোরের বড়াইগ্রামে অবৈধভাবে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালাচ্ছে স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড (এসটিসি) নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। অনুমোদনের তোয়াক্কা না করে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালানোয় প্রতিষ্ঠানটি একসময় গ্রাহকের আমানত হাতিয়ে উধাও হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া বাজারের এম এ মজিদ ম্যানশনের দোতলায় গত ১ অক্টোবর দুপুরে ব্যাংকটির নতুন শাখার উদ্বোধন করেন এসটিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান মির্জা আতিকুর রহমান। শাখা অফিস খুলে ইসলামী শরিয়াহভিত্তিক পরিচালনার কথা বলে সঞ্চয়, ডিপিএস, চলতি হিসাবসহ সব ধরনের ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু করেন কর্মকর্তারা। তবে সমবায় সমিতি হয়েও ব্যাংকের মতো করে কার্যক্রম চালুর খবরে প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা সমবায় বিভাগ সূত্রে জানা যায়, স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড (এসটিসি) সমবায় অধিদপ্তর থেকে সমবায় সমিতি হিসাবে শুধু নারায়ণগঞ্জ জেলায় কাজ করার অনুমতি নিয়েছে। সংশোধিত উপ-আইন অনুযায়ী কর্ম এলাকার বাইরে এর কার্যক্রম পরিচালনা করা সমবায় সমিতির বিধিমালা পরিপন্থী। এ ছাড়া সমবায় আইন অনুযায়ী কোনো সমবায় সমিতি তার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শাখা অফিস খুলতে পারবে না। সদস্য ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আমানত গ্রহণ বা ঋণ দিতে পারবে না। কিন্তু তারা এ আইনের তোয়াক্কা না করে বনপাড়ায় শাখা খুলে সমিতির পরিবর্তে ব্যাংক পরিচয়ে আর্থিক কার্যক্রম চালাচ্ছে। মঙ্গলবার সরেজমিনে ব্যাংকের কার্যালয়ে গেলে শাখা খোলার কোনো বৈধ অনুমতি বা রেজিস্ট্রেশনসংক্রান্ত দলিল, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনসংক্রান্ত বৈধ কাগজপত্রাদি দেখাতে পারেননি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শাখা ব্যবস্থাপক হুমায়ূন কবীর বলেন, এ ব্যাংকের শাখা খুলতে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন লাগবে না। এ সময় তিনি সমবায় বিভাগের অনুমোদন নিয়ে শাখা খুলেছেন বলে দাবি করলেও তাঁর দাবির সপক্ষে কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।

উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা সুশান্ত নারায়ণ খাঁ বলেন, ‘আমি এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানিয়েছি।’

ইউএনও আনোয়ার পারভেজ বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। আমি শিগগিরই তাদের কাগজপত্র যাচাই করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা