kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভোট না দেওয়ায় কর্মীকে মারলেন দোকান মালিক

রাজশাহীর বাঘা
মসজিদের মাইকে লোকজনকে লাঠিসোঁটা নিয়ে বের হতে বলা হয়

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীর বাঘার মনিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৭ নম্বর ওয়ার্ডে সদস্য পদে নির্বাচন করে হেরেছেন ফরমান আলী। তাঁকে ভোট না দেওয়ার অভিযোগে কর্মচারীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে দোকান মালিক ও ফরমানের ভাই জয়নাল আলীর বিরুদ্ধে। তবে কর্মচারীকে মারতে গিয়ে তিনি নিজেও আহত হয়েছেন।

গতকাল বুধবার মনিগ্রাম মাদরাসা মোড়ে ঘটনাটি ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে ফরমানের সমর্থক আব্দুল খালেককে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, গত সোমবার মনিগ্রাম ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন আনোয়ার হোসেন (টিউবয়েল)। আর হেরে যান ফরমান (ফুটবল)। মনিগ্রাম মাদরাসা মোড়ে তাঁর ভাই জয়নালের আসবাবপত্রের দোকান আছে। গতকাল সকালে দোকানের কর্মচারী আলাউদ্দিন কাজে এলে তাঁর বিরুদ্ধে নিজের ভাইকে ভোট না দেওয়ার অভিযোগ তুলেন জয়নাল। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে বাগিবতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে আলাউদ্দিনকে মারধর করেন জয়নাল। তাঁকে মারতে গিয়ে জয়নাল নিজেও আহত হন।

এর জেরে দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। একপর্যায়ে মসজিদের মাইকে মাইকিং করে উভয় পক্ষের লোকজনকে লাঠিসোঁটা নিয়ে বের হতে বলা হয়। তবে সংঘর্ষ বাধার আগেই বাঘা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। খবর পেয়ে চারঘাট থানা পুলিশও এলে উভয় পক্ষই ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এ সময় পরাজিত প্রার্থীর সমর্থক খালেককে আটক করা হয়। তিনি মনিগ্রাম পূর্বপাড়ার আবুল কাসেমের ছেলে।

বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা