kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সুন্দরগঞ্জ

মৃত চাচাকে অসুস্থ দেখিয়ে ভাতার টাকা তুলেছেন ইউপি সদস্যের স্বামী

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি   

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মহব্বত আলী মুন্সি। বার্ধক্যজনিত কারণে চলতি বছরের ২২ মার্চ মারা গেছেন গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের তালুক বেলকা গ্রামের এই ব্যক্তি। কিন্তু মৃত্যুর পরও তাঁর বয়স্ক ভাতার বই ব্যবহার করে টাকা তোলার অভিযোগ উঠেছে বেলকা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১, ২ ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত সদস্য মুক্তা বেগমের স্বামীর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত আনারুল হক সম্পর্কে মহব্বতের ভাতিজা।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মহব্বতের মৃত্যুর পর তাঁর বয়স্ক ভাতার বই উপজেলা সমাজসেবা অফিসে জমা দেন পরিবারের লোকজন। কিন্তু কৌশলে অফিসের মাঠকর্মীর কাছ থেকে বইটি হাতিয়ে নেন মহব্বতের ভাতিজা আনারুল। পরে মৃত চাচাকে অসুস্থ দেখিয়ে প্রত্যয়নপত্র জমা দিয়ে ছয় মাসের ভাতার টাকা তোলেন তিনি।

একপর্যায়ে বয়স বিবেচনায় মহব্বতের ছেলে ছবিয়ালকে সুবিধাভোগী হিসেবে নির্বাচিত করে উপজেলা সমাজসেবা অফিস। পরে ছবিয়াল ভাতার টাকা তুলতে গেলে দেখেন অ্যাকাউন্টে কোনো টাকা নেই।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে মৌখিক অভিযোগ করেন তিনি। কিন্তু কোনো সুরাহা পাননি। এমনকি আনারুল এখনো ভাতার বইটি ফেরত দেননি।

অভিযুক্ত আনারুল বলেন, ‘আমি কারো ভাতার টাকা তুলিনি।’ তবে মাঠকর্মী কাজল চন্দ্র বলেন, ‘আনারুল সুবিধাভোগীর (মহব্বত) ভাতিজা হওয়ায় বইটা আমি (তাঁকে) দিই। পরে তিনি কৌশলে ভাতার টাকা তুলেছেন বলে শুনেছি।’ অন্যদিকে ছবিয়াল অভিযোগ করেন, ‘আমি অভিযোগ করেছি। তার পরও টাকা আর বই ফেরত পাইনি।’

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মুন্নী রানী বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা