kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রিকশাচালকদের সঙ্গে দ্বন্দ্ব

তানোরে তিন দিন ধরে বাস চলাচল বন্ধ

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও বাসচালকদের দ্বন্দ্বের জেরে রাজশাহী, তানোর, মুণ্ডুমালা, আমনুরা রুটে গত তিন দিন ধরে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর ফলে চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছে যাত্রীরা।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা তানোর থানা মোড় থেকে কয়েকজন যাত্রী নিয়ে রাজশাহীর দিকে রওনা করে। পথে থানা মোড়ে বাস মাস্টার শরিফের সঙ্গে ওই গাড়ির চালকের কথা-কাটাকাটি ও ধাক্কাধাক্কি হয়। এ সময় আমনুরা থেকে ছেড়ে আসা একটি বাস থানা মোড়ে এসে যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে রাস্তার মধ্যে গাড়ি বন্ধ করে রাখে। পরে রাজশাহী ও আমনুরা থেকে ছেড়ে আসা বাসগুলোও একের পর এক তানোর বাজারসহ থানা মোড়ে এসে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে রাস্তার মধ্যে গাড়ি বন্ধ করে রাখে। এতে প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হলে তানোর থানার ওসিসহ পুলিশ সদস্যরা এসে বাসগুলোর চালকদের খুঁজে বের করে এবং বাসগুলো রাস্তার এক পাশে নিয়ে যান। এ সময় আমশোর বাস মাস্টার কালামকেও আটক করে থানায় নিয়ে যান। তবে পরিস্থিতি শান্ত হলে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজশাহী বাস মালিক সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, তানোর টু রাজশাহী সড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা বন্ধ না হলে তানোর রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকবে। সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার মধ্যে তানোর রুটের সব বাস রাজাশাহী বাস টার্মিনালে চলে যায়।

সিএনজি মালিক ও চালক শ্রমিক লীগ সমিতির সভাপতি শফিকুল ও সম্পাদক আলমগীর বলেন, ‘তানোরে ৫৩টি সিএনজি রয়েছে। ৫৩টি পরিবার এসব সিএনজির আয়ের ওপর নির্ভরশীল। রাজশাহীর প্রতিটি উপজেলার রাস্তায় বাস ও সিএনজি চলে। এতে কোনো ক্ষতি হয় না। তাহলে তানোর রুটে কেন শুধু বাস চলবে?’ তাদের অভিযোগ, এই সড়কে সিএনজিচালকদের কয়েকটি স্থানে বাস মাস্টাররা আটক করে। কখনো কখনো সিএনজি থেকে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে চালকদের মারধরও করে।

তানোর থানার ওসি খাইরুল ইসলাম বলেন, ‘বাস মালিক সমিতি রাজশাহী টু তানোর রুটে সিএনজি চলাচল করতে দেবে কি দেবে না—সেটা তাদের বিষয়। সে বিষয়ে আমার কিছু বলার নেই।’ রাজশাহী জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের আহ্বায়ক কামাল হোসেন রবি বলেন, ‘রাজশাহী টু তানোর রুটে সিএনজি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ থাকবে। মাঝেমধ্যে পুলিশ আমাদের লোকজনদের আটক করে। সব সমাধান হলে বাস চলবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা