kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়ক

দেড় মাস ধরে বাস বন্ধ, দুর্ভোগ

মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে শ্রমিকরা বিপাকে

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দুই জেলার বাস মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে দেড় মাস ধরে মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে একদিকে দুই জেলার বাস শ্রমিকরা আর্থিকভাবে হচ্ছেন ক্ষতির সম্মুখীন। অন্যদিকে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ যাত্রী। বিরাজমান সমস্যার দ্রুত সমাধান না হলে যাত্রীদের ভোগান্তি বেড়ে যাবে এবং শ্রমিকরা পড়বেন আরো বিপাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মেহেরপুর জেলার মালিক সমিতির দাবি টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে একটি মেহেরপুরের বাস এরপর একটি চুয়াডাঙ্গার বাস ছেড়ে যাবে। কিন্তু চুয়াডাঙ্গার মালিক সমিতির দাবি, এক ঘণ্টা তাদের বাস চলবে এবং পরের ঘণ্টা মেহেরপুরের বাস চলবে। এ ছাড়া মেহেরপুর পৌর বাস টার্মিনাল ব্যবহারে চুয়াডাঙ্গা মালিকরা অপরাগতা প্রকাশ করাও সরাসরি বাস চলাচল বন্ধের অন্যতম কারণ বলে জানিয়েছে মেহেরপুর মালিক সমিতি।

এই সকল দ্বন্দ্ব নিয়ে দেড় মাস ধরে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ আছে। মেহেরপুরের শেষ সীমানা দরবেশপুর পর্যন্ত ১৮ কিমি মেহেরপুরের মালিকানাধীন বাসগুলো চলছে। অন্যদিকে দরবেশপুরের শেষ থেকে চুয়াডাঙ্গা পর্যন্ত ১০ কিমি চলছে চুয়াডাঙ্গার মালিকানাধীন বাস। এই রেষারেষির জেরে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে সাধারণ যাত্রীদের।

মেহেরপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে কয়েকজন যাত্রী বলেন, ‘আমাদের প্রতিদিন চাকরি ও ব্যবসার জন্য চুয়াডাঙ্গা যাওয়া-আসা করতে হয়। কিন্তু বাস মালিকদের দ্বন্দ্বে আমরা সরাসরি আমাদের গন্তব্যে পৌঁছাতে পারি না। এতে আমাদের সময় ও অর্থ দুটিই নষ্ট হচ্ছে।’ মেহেরপুরের বাসচালক মিন্টু, বাবু, চাঁদ আলী, মন্টু বলেন, ‘দুই জেলার মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমরা। ঠিকমতো যাত্রী পাওয়া যাচ্ছে না। তেল খরচ তোলায় মুশকিল হয়ে পড়ে। শ্রমিক ও যাত্রীদের কথা ভেবে দুই জেলার নেতারা দ্রুত এ সমস্যা সমাধান করবেন, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।’ 

এ ব্যাপারে মেহেরপুর জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান বলেন, ‘দুই জেলার মালিকপক্ষের দুই রকম দাবি। কেউ কারো দাবি মেনে নিতে পারছে না। এই দ্বন্দ্ব চলছে প্রায় দেড় মাস ধরে। মেহেরপুরের বাস মেহেরপুরের বাইরে যাচ্ছে না এবং চুয়াডাঙ্গার বাস মেহেরপুরে আসছে না। এতে শ্রমিকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন এবং সাধারণ যাত্রীরা পড়েছে বিপাকে।’

মেহেরপুর জেলা বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল বলেন, ‘মেহেরপুর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও পৌর মেয়র চিঠি দিয়েছিল নতুন বাস টার্মিনাল থেকে বাস ছাড়া এবং সেখানে বাস রাখার জন্য। কিন্তু চুয়াডাঙ্গা বাস মালিক সমিতি টার্মিনালে বাস রাখতে অপারগতা প্রকাশ করে। তাদের দাবি, এক ঘণ্টা তাদের বাস চালাবে, পরের ঘণ্টা আমাদের বাস চালাতে হবে। এতে আমরা যাত্রী পাচ্ছিলাম না। যে কারণে পুরনো নিয়মে একটা তাদের, একটা আমাদের বাস চলাচলে সিদ্ধান্ত জানাই। তারা আমাদের সিদ্ধান্ত মেনে না নিয়ে তাদের সীমানা দরবেশপুর পর্যন্ত বাস চালাচ্ছে। আমরাও বাধ্য হয়ে দরবেশপুর পর্যন্ত বাস চালাচ্ছি।’

এ বিষয়ে মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক মো. আতাউল গনি বলেন, ‘দুই জেলার বাস মালিকদের দ্বন্দ্বে  মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে যাত্রীদের অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা