kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দুটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান টাকা নিয়ে উধাও

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) ও চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দুটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান টাকা নিয়ে উধাও

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে সমাজসেবা উন্নয়ন সংস্থা নামের একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান ২০ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়ে চম্পট দিয়েছে। ঘটনাটি গত বৃহস্পতিবার বিকেলে জানাজানি হওয়ার পর থেকে দুই দিন ধরে কোটচাঁদপুর দুধসরা সড়কের অফিসের সামনে ভুক্তভোগীদের অবস্থান করতে দেখা যায়। এদিকে চুয়াডাঙ্গায় একই ঘটনা ঘটিয়েছে সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র নামের এক এনজিও।

কোটচাঁদপুর উপজেলার আলুকদিয়া গ্রামের রেজাউল ইসলামের স্ত্রী ভুক্তভোগী শাহিদা খাতুন এবং একই গ্রামের দাউদ হোসেনের স্ত্রী কামরুন নাহার বলেন, ‘এক সপ্তাহ আগে দুজন পুরুষ ও একজন মহিলা আমাদের গ্রামে এসে বলে, কোটচাঁদপুরে সমাজসেবা উন্নয়ন সংস্থার শাখা অফিস খোলা হয়েছে। এখানে গরিব ও অসহায় মানুষের মধ্যে থেকে পুরুষ মহিলা আলাদাভাবে ১০ জনের একেকটি দল গঠন করে সদস্য করা হবে। তাদের মাঝে সুদবিহীন ঋণ বিতরণ করা হবে। সেই সঙ্গে সদস্য এবং তাদের ছেলে-মেয়েদের বিনা টাকায় হস্তশিল্পের কাজ শেখানো হবে। পরে তাদের সেলাই মেশিন দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে বিনা সুদে ঋণ নিতে হলে এক লাখ টাকা নিতে ১০ হাজার টাকা এবং ৫০ হাজার টাকা নিতে হলে পাঁচ হাজার টাকা জমা দিতে হবে। তারা দুজনই এক লাখ টাকা করে নেওয়ার জন্য ভর্তি ফি ১৫০ টাকাসহ ২০ হাজার ৩০০ টাকা করে তুলে দিয়েছিল ওই প্রতারকদের হাতে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতারকরা চার-পাঁচ দিন ধরে গ্রামে গিয়ে সহজ-সরল মানুষকে লোভনীয় প্রস্তাব দেয়। সেই সঙ্গে ৩১ আগস্ট কোটচাঁদপুর দুধসরা সড়কে অফিস নিয়ে সাইন বোর্ড লাগায়। পরদিন রবিবার থেকে একেক গ্রুপের সদস্যদের ডেকে তাদের অফিস দেখায়। আগামীকাল রবিবার ঋণ দেওয়ার কথা বলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তিন শতাধিক ব্যক্তির কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে চম্পট দেয় তারা। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সদস্যরা ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ছবি জমা দিতে এসে অফিস তালাবদ্ধ পায়।

দোড়া ইউপি সদস্য আশরাফ আলী বলেন, তিনিও পুরুষ গ্রুপের সঙ্গে ১০ হাজার ১৫০ টাকা দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বুঝতেই পারিনি আমরা প্রতারকদের খপ্পরে পড়েছি।’

কোটচাঁদপুর থানার ওসি বলেন, এই কোটচাঁদপুর থেকেই প্রতারক হুন্ডি কাজল হাজার হাজার কোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছে। সেখানে আবার অপরিচিত মানুষকে এই এলাকার লোকজন টাকা দিয়ে বিশ্বাস করে কী করে! বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এদিকে চুয়াডাঙ্গায় গ্রাহকদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়েছে ‘সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র’ নামের একটি এনজিওর কর্মকর্তারা। তারা অফিসের সাইনবোর্ডটিও খুলে নিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। জেলা শহরের মাছের আড়তপট্টি এলাকার মাছ ব্যবসায়ী আজিজুর রহমান চাম্পার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। গত বুধবার দুপুরে শত শত গ্রাহক বাড়ির মালিক চাম্পার বাড়ির সামনে হাজির হয়। চাম্পাও এই এনজিওর সঙ্গে জড়িত বলে অনেকের দাবি।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ৮-১০ দিন আগে শহরের মাছপট্টি এলাকার আজিজুর রহমান চাম্পার বাড়ির দ্বিতীয় তলায় সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র নামের একটি নতুন সাইনবোর্ড অনেকের চোখে পড়ে। এর হেড অফিস হিসেবে ১২১ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, শাহবাগ, ঢাকা-১২১২ উল্লেখ করা হয়।

শুরু থেকেই মোটা অঙ্কের ঋণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় এনজিওটির কর্মকর্তারা। অনেকেই ঋণের লোভে পড়ে পাঁচ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত সঞ্চয় জমা দেয়। পাঁচ হাজার টাকা জমা দিলে ৫০ হাজার ঋণ দেওয়া হবে বলে প্রচার করা হয়।

বেশ কয়েকজন নারী কর্মী সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিচয় দিয়ে চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে নারীদের সহজ কিস্তিতে মোটা অঙ্কের ঋণের প্রলোভন দেখিয়ে অফিসে যোগাযোগ করতে বলে। গ্রামের অনেক নারী সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্রে এসে সঞ্চয় জমা দিলে তাদের জানানো হয়, বৃহস্পতিবার অফিস থেকে ঋণ দেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার ঋণ নিতে এসে অনেকে দেখে, অফিসে তালা দেওয়া। সাইনবোর্ডটিও নেই। পরে জানা যায়, রাতে ট্রাকে করে অফিসের মালপত্র ও সাইনবোর্ড খুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে রোকেয়া নামের এক নারী চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি আবু জিহাদ মোহাম্মদ ফখরুল আলম খান বলেন, ‘সেবা মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র নামের একটি এনজিও ঋণের প্রলোভন দেখিয়ে অনেকের কাছ থেকে সঞ্চয় হিসেবে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে বলে অভিযোগ পেয়েছি। একজন লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা