kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভৈরব

শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ এনে শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে গ্রামবাসী শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ করে দিল। শিক্ষকের অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত কোনো অভিভাবক তাঁদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাবেন না বলে জানান। তবে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়ে সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠানোর আহ্বান জানান শিক্ষা কর্মকর্তা।

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের আতকাপাড়া গ্রামে  বিদ্যালয়ে ২৩৯ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তবে  শিক্ষার মান, স্কুল অবকাঠামো উন্নয়ন, স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি, উপবৃত্তি ও বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে প্রধান শিক্ষক মো. একিন আলীর বিরুদ্ধে। এসব অভিযোগ এনে গত সোমবার গ্রামবাসী তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পড়তে পাঠায়নি। বিদ্যালয়ের সামনে গ্রামবাসী অবস্থান কর্মসূচি ও বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে খবর পেয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। এ সময় গ্রামবাসী শিক্ষার মান, উপবৃত্তির টাকা না পাওয়া, প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করা, বিদ্যালয়ের টিউবওয়েল নষ্ট, স্লিপ ফান্ড ও বিদ্যালয়ের উন্নয়নকাজের সরকারি বরাদ্দ সুষ্ঠুভাবে ব্যবহার না করে আত্মসাৎ ও শিক্ষার্থীদের মারধর করার অভিযোগ এনে শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে প্রাধন শিক্ষকের অপসারণ দাবি করে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের অভিভাবক প্রতিনিধি আসকর মিয়া প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি এবং শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করাসহ সব অনিয়মের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করবেন বলে জানান।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. একিন আলী এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামিম আহমেদ বলেন, ‘লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দ্রুত বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তা ছাড়া গ্রামবাসী যেন তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠায়, সে আহ্বান জানানো হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা