kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাড়ির মুখে সড়কহীন সেতু

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাড়ির মুখে সড়কহীন সেতু

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নগরবাড়ি গ্রামে বাড়ির সামনে সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। অথচ এখানে কোনো রাস্তা নেই। ওই বাড়ির কাঠবাগানের ভেতর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে রাস্তা ছাড়াই একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। প্রভাব খাটিয়ে এক ব্যক্তির জায়গা দখল করার জন্য তাঁর বাড়ির মুখে সড়কহীন এই সেতু নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার নগরবাড়ী মোদকপাড়া গ্রামে এমন ঘটনা ঘটেছে।

কালিহাতীর খেজুরতলা পাকা রাস্তা থেকে নারান্দিয়া বাজার রাস্তায় ঠাণ্ডু মেকারের বাড়ির কাছে সেতুটি নির্মাণ করা হয়। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর সেতুটি নির্মাণ করে। এতে ব্যয় হয়েছে ২৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি কিসমত আলী জানান, তিনি স্থানীয় নারান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদে গ্রাম পুলিশ হিসেবে কর্মরত। হঠাৎ তাঁর বাড়ির পূর্ব পাশে খালের ওপর সেতু নির্মাণকাজ উদ্বোধনের জন্য তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ঠিকাদার ও সংশ্লিষ্ট লোকজন উপস্থিত হন। তখন তাঁকে জানানো হয় সেতু নির্মাণের কথা। তাঁর আগে তাঁকে কিছুই জানানো হয়নি। তিনি এ নিয়ে আপত্তি করলে তাঁকে শাসানো হয়। বেশি আপত্তি করলে তাঁর সবটুকু জায়গা কেড়ে নেওয়া হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয়। পরে তিনি অনুরোধ করেন, সেতুটি একটু বাঁকা করে নির্মাণ করতে। এতে তিনি তাঁর এক অংশের প্রায় ২ শতাংশ জায়গা ছেড়ে দিতেও রাজি হন, কিন্তু তাতেও কাজ হয়নি। সেতু করতে গিয়ে তাঁর লাগানো প্রায় ৩০টি গাছ কাটা হয় বলে কিসমত আলী অভিযোগ করেন। বাবার ওয়ারিশ হিসেবে তিনি ৭ শতাংশ জায়গা পেয়েছেন। সেখানে তিনি বাড়ি করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু সেতুর কারণে তিনি আর বাড়ি করতে পারছেন না। অন্যের জায়গায় ঘর তুলে বসবাস করছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত কিসমত আলী আরো বলেন, ‘সেতু হওয়াতে সমস্যা নাই, কিন্তু তার আগে রাস্তার ব্যবস্থা করা দরকার ছিল। সেতু থেকে প্রায় ৪০ ফুট উত্তর দিকে রাস্তা। আমার বাগানের ভেতর দিয়ে সেখানে যেতে হয়। এখান দিয়ে রাস্তা করতে চাইলে আমার সবটুকু জায়গা চলে যাবে।’

নারান্দিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ বলেন, ‘ব্রিজের পাশে মাটি নেই। রাস্তাও নেই। ব্রিজ যদি ঠিকমতো ব্যবহার করা না যায় তাহলে এর কার্যকারিতা থাকে না।’

কালিহাতীর পিআইও শিহাব উদ্দিন বলেন, ‘আমি এখানে নতুন এসেছি। সেতু যেহেতু হয়েছে সেটি তো আর সরানো সম্ভব নয়। রাস্তা ছাড়া ব্রিজের মূল্য থাকবে না। আবার কারো ক্ষতি করেও কিছু করা যাবে না। বিকল্প কী করা যায় সে চেষ্টা করতে হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা