kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফরিদপুর

প্রতিপক্ষের হুমকিতে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন যুবলীগ নেতা

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাবনার ফরিদপুর উপজেলার ডেমরা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল্লাহ সেলিম প্রায় এক মাস ধরে বাড়ি থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। উপজেলার ডেমরা ইউনিয়নের খাগুরিয়া গ্রামে ভিজিএফ কার্ডের বণ্টন নিয়ে গত ৬ আগস্ট ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগ সমর্থক করিম বিশ্বাসের সঙ্গে  সেলিমের সংঘর্ষ হয়। এর পর থেকে প্রতিপক্ষের হামলার ভয়ে তিনি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। সেলিম ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে। এ ব্যাপারে মাহমুদুল্লাহ সেলিম ফরিদপুর থানা পুলিশের সহযোগিতা চাইলেও আওয়ামী লীগের গ্রুপিংয়ের কারণে পুলিশ নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করছে বলে তাঁর অভিযোগ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৬ আগস্ট রাতে ঈদ উপলক্ষে গ্রামের দরিদ্রদের মাঝে ভিজিএফ কার্ডের বণ্টন নিয়ে উপজেলার খাগুরিয়া গ্রামের ইউপি সদস্য করিম বিশ্বাসের সঙ্গে মাহমুদুল্লাহর সেলিমের সংঘর্ষ হয়। এতে সেলিমের শরীরের বিভিন্ন অংশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জখম হয়। সংঘর্ষে আহত সেলিমকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ফরিদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে পাবনা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ সময় সংঘর্ষে প্রতিপক্ষ করিম বিশ্বাসের পক্ষের একজনও আহত হয়। এই ঘটনায় সেলিম ফরিদপুর থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ অপারগতা প্রকাশ করে। তবে সংঘর্ষের ঘটনায় করিম বিশ্বাস সেলিমকে আসামি করে থানায় মামলা করে এবং প্রকাশ্যে সেলিমকে পেটানোর হুমকি দেয়। এতে সেলিম ভয়ে এলাকা ছেড়ে আত্মগোপন করেন। পরে গত ১৮ আগস্ট ইউপি সদস্য করিম বিশ্বাসসহ পাঁচজনকে আসামি করে পাবনার আমলি আদালতে মামলা করেন সেলিম। ওই মামলায় করিম বিশ্বাসসহ অন্যরা আদালত থেকে গত সপ্তাহে জামিন নিয়েছে।

যুবলীগ নেতা সেলিম মুঠোফোনে বলেন, ‘এলাকায় পেলে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমি গ্রামে যেতে পারছি না।’

হুমকি দেওয়ার বিষয়ে ইউপি সদস্য করিম বিশ্বাস বলেন, ‘তিনি আমাদের লোকজনকে মেরেছেন এবং আদালতে মামলাও করেছেন। তাই তাঁকে এলাকায় পেলে দেখে নেওয়া হবে।’

এ ঘটনায় পুলিশের নিষ্ক্রিয় থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে ফরিদপুর থানার ওসি আবুল কাশেম বলেন, ‘তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা