kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দিনাজপুর ও নওগাঁর ডিসির নম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবি

দিনাজপুর ও মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহমুদুল আলমের সরকারি ফোন নম্বর ক্লোন করে বিভিন্নজনকে কল করে চাঁদা চাওয়া হচ্ছে। গত রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চিরিরবন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতা তারিকুল ইসলামের কাছে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়। বিনিময়ে তাঁকে টিআর-কাবিখার প্রকল্পের চাল পাইয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। বিষয়টি জেলা প্রশাসক জানার পর রাত ১০টায় সবাইকে সতর্ক করতে নিজস্ব ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি।

উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম জানান, রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাঁর ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে জেলা প্রশাসকের ০১৭১৩২০১৬৮৫ নম্বর থেকে একটি কল আসে। এরপর জানান, আপনার জন্য একটা সুখবর আছে। আপনি টিআর না কাবিখা চান। আপনাকে স্পেশাল বরাদ্দ দেওয়া হবে। তবে এ জন্য আপনাকে টনপ্রতি ২ শতাংশ হারে টাকা দিতে হবে। এ জন্য এখনই ০১৮৫৩১০৭৬৫১—এই বিকাশ নম্বরে এক লাখ টাকা পাঠাতে হবে।

বিষয়টি নিয়ে তারিকুল ইসলামের সন্দেহ হলে জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলমকে জানান। এ সময় জেলা প্রশাসক উপজেলা চেয়ারম্যানকে জানান তিনি টাকা চাননি। তাঁর ফোন নম্বর ক্লোন করে টাকা চাওয়া হতে পারে।

এদিকে একই দিন নওগাঁর জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদের সরকারি ফোন নম্বর ক্লোন করেও উন্নয়ন প্রকল্প দেওয়ার নামে মান্দা উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মান্দা উপজেলা চেয়ারম্যান সরদার জসিম উদ্দিন বলেন, ‘রবিবার সকাল ১১টার দিকে আমার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে জেলা প্রশাসকের সরকারি নম্বর থেকে ফোন আসে। এ সময় বলা হয়, আপনার জন্য একটা সুখবর রয়েছে। আপনার নামে ২৫ টন কাবিখা ও ২৫ টন টিআর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ জন্য প্রকল্প দাখিলসহ এক লাখ টাকা বিকাশ করতে হবে। বিষয়টি আমি সঙ্গে সঙ্গে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে অবহিত করি।’

ঘটনাটি জানার পর এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদ। এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে তিনি লিখেছেন, ‘জেলা প্রশাসক নওগাঁর সরকারি অথবা ব্যক্তিগত নম্বর বা অন্য কোনো নম্বর থেকে জনপ্রতিনিধিদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বরাদ্দ দেওয়ার নামে ফোন দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এ রকম ফোনে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা