kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মণিরামপুরে আ. লীগের সংঘর্ষ ককটেল বিস্ফোরণ, ভাঙচুর

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মণিরামপুরে আ. লীগের সংঘর্ষ ককটেল বিস্ফোরণ, ভাঙচুর

মণিরামপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ি, ককটেল বিস্ফোরণ ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রবিবার দুপুরে পৌর শহরের দক্ষিণমাথা বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাজারে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে মণিরামপুর পৌরসভা চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে শোকসভার আয়োজন করে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ। সভায় স্থানীয় সংসদ সদস্য পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য ও তাঁর পরিবার নিয়ে সমালোচনামূলক বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন লাভলুসহ বক্তারা। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্ষুব্ধ হয় প্রতিমন্ত্রীর অনুসারীরা। গতকাল রবিবার সকালে প্রতিমন্ত্রীর অনুসারীরা পৌর শহরে মহড়া দেয়। এরপর দুপুরের দিকে অনুসারীদের নিয়ে বাজারে ওঠেন আমজাদ হোসেন লাভলু। তিনি নিজের ব্যবহৃত জিপ গাড়ি নিয়ে বাজারের দক্ষিণমাথা বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছালে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ির ঘটনা ঘটে। এ সময় ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন লাভলুর ব্যবহৃত জিপ গাড়ির পেছনের অংশের গ্লাস এবং পূবালী ব্যাংক মণিরামপুর শাখার গ্লাস ও এসি ভাঙচুরের শিকার হয়। এ ঘটনার পর আতঙ্কিত হয়ে বাজারের ব্যবসায়ীরা দোকানপাট বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে উভয় পক্ষ স্থান ত্যাগ করে।

মণিরামপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক আছে। বাজারে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।’

বাকৃবি ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি

এদিকে আমাদের বাকৃবি প্রতিনিধি জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, শনিবার রাতে ফজলুল হক হলের ক্যান্টিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির বিপক্ষ গ্রুপের মুনতাসির রাসিব, মজনু রানা, আকাশ রহিম রাজনৈতিক আলাপচারিতা করছিল। এ সময় ক্যান্টিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ও বাকৃবি ছাত্রলীগের সদস্য তাহছিউদ্দৌলা বাপ্পি সেখানে উপস্থিত হলে তাদের মাঝে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তারা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে।

এ ব্যাপারে বাকৃবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ বলেন, ‘হলের সিনিয়র ও জুনিয়রদের মধ্যে ভুল-বোঝাবুঝি হয়েছিল। পরে হলেই ঘটনাটির মীমাংসা হয়েছে।’ ফজলুল হক হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘প্রক্টরের সহযোগিতায় তাদের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা