kalerkantho

রানীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

দুই লাখ মানুষের জন্য চিকিৎসক মাত্র পাঁচজন

আত্রাই-রানীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

২৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নওগাঁর রানীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসকের পদ আছে মোট ১৮টি। কিন্তু বর্তমানে ওই হাসপাতালে মাত্র পাঁচজন চিকিৎসক কর্মরত। এতে উপজেলার প্রায় দুই লাখ মানুষের চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হচ্ছে।

জানা যায়, রানীনগরবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১৯৮৪ সালে উপজেলা সদরের পশ্চিম বালুভরা মৌজায় ৬.২৫ একর সরকারি জমির ওপর প্রথমে ৩১ শয্যাবিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়। পরে ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করার লক্ষ্যে ১৯ শয্যাবিশিষ্ট তিনতলা ভবন নির্মাণ করা হয়। নির্মাণকাজ শেষে ২০১২ সালে ভবনটি হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু জনবল, ওষুধসহ বিভিন্ন সংকটের কারণে এখনো ওই ভবনের কার্যক্রম চালু করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে ওই হাসপাতালের মোট ১৮টি পদের মধ্যে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসারসহ ১৩টি পদই শূন্য। অথচ প্রায় প্রতিদিনই বহির্বিভাগে অন্তত ৩৫০ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। আর ভর্তি হয় কমপক্ষে ২০ জন রোগী। সংকটের কারণে রোগীদের বাইরে থেকে ওষুধ কিনতে হয়। দরিদ্র রোগীদের ক্ষেত্রে বাইরে থেকে ওষুধ কিনে খাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়ায়।

এ ছাড়া ওই হাসপাতালে অস্ত্রোপচারকক্ষ থাকলেও অযত্ন আর অবহেলায় তা পরিত্যক্ত হয়ে আছে। একটিমাত্র পুরাতন এক্স-রে মেশিন আছে, যা ‘খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে’ চলছে। হাসপাতালের ভেতর মানসম্পন্ন স্টোররুম না থাকায় বিভিন্ন মাল যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কে এইচ এম ইফতেখারুল আলম খান বলেন, ‘রানীনগরবাসীকে যথাযথ চিকিৎসাসেবা দিতে আমাদের কোনো ঘাটতি নেই। তবে সমস্যাগুলো সমাধান করা গেলে তারা আরো ভালো স্বাস্থ্যসেবা পাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা