kalerkantho

রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচন

‘আর কোনো ছাড় নয়, নৌকা চাই’

রংপুর অফিস   

১০ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘আর কোনো ছাড় নয়, নৌকা চাই’

চৌধুরী খালেকুজ্জামান

উপনির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে রংপুর-৩ (সদর ও সিটি করপোরেশনের আংশিক) আসনে নৌকার প্রার্থীর দাবি ততই তুঙ্গে উঠছে। ‘আর কোনো ছাড় নয়, রংপুর-৩ আসনে নৌকা চাই’—এমন স্লোগানে অব্যাহত রয়েছে সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন, গণসংযোগ আর শোডাউন। আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছাড় দিতে নারাজ তৃণমূলের নেতাকর্মীসহ এলাকার উন্নয়নকামী মানুষ। তাদের দাবি, এ আসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামানকে প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক দেওয়া হোক।

সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হয় রংপুর-৩ আসনটি। অক্টোবর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে এ আসনে উপনির্বাচনের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

গত ১৪ জুলাই মারা যান জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এরশাদ। ১৬ জুলাই জাতীয় সংসদ সচিবালয় আসনটি শূন্য হওয়ার গেজেট প্রকাশ করে। সংবিধান অনুযায়ী, আগামী ১১ অক্টোবরের মধ্যে রংপুর-৩ আসনে উপনির্বাচন হবে। এরশাদের অবর্তমানে এ আসনটি জাপার ধরে রাখা স্থানীয় নেতাকর্মীদের বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে রংপুর অঞ্চলে দলের প্রভাব বাড়াতে আওয়ামী লীগ এই উপনির্বাচনে আসনটি দখলে নিতে চাইছে।

রংপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এমপি থাকলেও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত না হওয়ায় ও মানুষের খোঁজখবর না নেওয়ায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। তাই এই আসনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সরকারদলীয় এমপি দ্বারা হোক তা-ই চাইছে তারা। অন্যদিকে এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে ভোটারদের কাছে ভোট চাইছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামান। ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নৌকা মার্কায় ভোট চাইছেন তিনি।

এ ছাড়া রংপুর-৩ আসনে চৌধুরী খালেকুজ্জামানকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়ার দাবিতে গত বৃহস্পতিবার নগরীর কাচারীবাজার এলাকায় বিক্ষোভসহ বিশাল মানববন্ধন-সমাবেশ করেছে দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি রংপুর জেলার সভাপতি অধ্যক্ষ আতিয়ার রহমান প্রামাণিকের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা কৃষক লীগের সহসভাপতি সামসুল ইসলাম লিচু, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ফজলে এলাহী ফুলু, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল হালিম প্রামাণিক, সাবেক ছাত্রনেতা অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন প্রমুখ। তাঁরা রংপুরের উন্নয়নে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামানকে রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আহ্বান জানান।

মানববন্ধন-সমাবেশ শেষে কথা হয় রংপুর জেলা কৃষক লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সামসুল ইসলাম লিচু ও আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল হালিম প্রামাণিকের সঙ্গে। তাঁরা বলেন, ১৯৭৩ সালের পর থেকে এ আসনে নৌকার কোনো এমপি নেই এবং ২০০১ সালের পর থেকে মহাজোটের কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেয়নি। এ আসনে আওয়ামী লীগের এমপি থাকলে উন্নয়ন আরো ত্বরান্বিত হতো, কল-কারখানা গড়ে উঠত, বেকারদের কর্মসংস্থান হতো। তাই আসন্ন নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে ভাগ্য পরিবর্তনের সুযোগ চায় রংপুরের সর্বস্তরের মানুষ।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে মনোনয়নপ্রত্যাশী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামান বলেন, সরকারদলীয় প্রতিনিধি না থাকার কারণে সারা দেশের সঙ্গে রংপুরে উন্নয়ন হলেও তা গতি পাচ্ছে না। এই আসনে তিনবার তাঁকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল উল্লেখ করে চৌধুরী খালেকুজ্জামান জানান, পরে মহাজোটের কারণে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। তিনি বলেন, রংপুর-৩ আসনে সরকারদলীয় নির্বাচিত প্রতিনিধি না থাকায় গ্যাস, চার লেনসহ নানা উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে বঞ্চিত থাকছে রংপুর। এখানকার মানুষ আজ তা উপলব্ধি করছে।

মন্তব্য