kalerkantho

রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচন

জাপাকে ছাড় দিতে নারাজ আ. লীগ

রংপুর অফিস   

৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জাপাকে ছাড় দিতে নারাজ আ. লীগ

রেজাউল করিম রাজু

রংপুর-৩ (সদর ও সিটি করপোরেশনের আংশিক) আসনটি এবার জাতীয় পার্টিকে (জাপা) ছাড় দিতে রাজি নয় স্থানীয় আওয়ামী লীগ। তাই এ আসনের উপনির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠ চষে বেড়াতে শুরু করেছেন। বিগত নির্বাচনগুলোতে মহাজোটের শরিক জাপাকে ছেড়ে দেওয়া হয় এ আসনটি।

সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে রংপুর-৩ আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। অক্টোবর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে এ আসনে উপনির্বাচনের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। গত ১৪ জুলাই মারা যান জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এরশাদ। ১৬ জুলাই জাতীয় সংসদ সচিবালয় আসনটি শূন্য হওয়ার গেজেট প্রকাশ করে।

সংবিধান অনুযায়ী, আগামী ১১ অক্টোবরের মধ্যে রংপুর-৩ আসনে উপনির্বাচন হবে। এরশাদের অবর্তমানে এ আসনটি জাপার ধরে রাখা স্থানীয় নেতাকর্মীদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে রংপুর অঞ্চলে দলের প্রভাব বাড়াতে আওয়ামী লীগ এবার উপনির্বাচনে আসনটি দখলে নিতে চাইছে।

এ আসনে উপনির্বাচনে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু। তৃণমূল নেতাকর্মীদের দাবি, আসনটি দখলে নিতে রাজুর নেতৃত্বে এরই মধ্যে সব ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে সম্মেলন, আগাম নির্বাচনী সভাসহ প্রচার-প্রচারণা শুরু করা হয়েছে। রাজু প্রতিদিনই বিভিন্ন ইউনিয়নের হাট-বাজার, পাড়া-মহল্লায় সরকারের উন্নয়নের প্রচারপত্র বিলি, উঠান বৈঠক ও গণসংযোগ করছেন। রাজু ছাড়াও এ আসনে কয়েকজন সম্ভাব্য প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

রংপুর-৩ আসনটি আগে জাতীয় পার্টির জন্য অনেকটা নির্ধারিত ছিল। ১৯৯০ সালের পর থেকে এরশাদের ওপর ভর করে এ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরাই বিজয়ী হয়ে আসছেন। কিন্তু এবার বিপত্তি ঘটতে পারে। আওয়ামী লীগ এ আসনটি জাপাকে আর ছাড় দিতে রাজি নয়। তাই তারা এরই মধ্যে দল গুছিয়ে মাঠে নেমে পড়েছে।

এলাকা ঘুরে দেখা যায়, সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজুর পক্ষে নির্বাচনী কাজে অংশ নিচ্ছে স্থানীয় নেতাকর্মীরা। যুবলীগ নেতা হাফিজুল ইসলাম বলেন, ‘তৃণমূলের নেতাকর্মীরা অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজুর পক্ষে আছে। ভোটারদের সাড়াও মিলছে ব্যাপক।’ আওয়ামী লীগ নেতা বুলবুল আহমেদ বলেন, ‘এবার আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা রাজু ভাইকে নিয়ে কঠোর অবস্থানে আছি।’

আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু বলেন, ‘তৃণমূলের সঙ্গে সমন্বয় করে রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে কাজ করা হচ্ছে। গণতান্ত্রিক ধারাসহ মুক্তিযুদ্ধের ধারা ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ভোটাররা এ আসনে অবশ্যই আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করবে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্ব নেতৃত্বে স্থান পাচ্ছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, যা আমাদের গর্বের বিষয়। এ কারণে ভোটাররা আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে। অতীতের তুলনায় রংপুর-৩ আসনে আওয়ামী লীগ এখন অনেক বেশি শক্তিশালী। নির্বাচনে আসনটি উন্মুক্ত করে দিলেও আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিপুল ভোটে জয় পাবে।’

মন্তব্য