kalerkantho

আক্কেলপুর
কোরবানির পশুর হাট

সরবরাহ বেশি বেচা-কেনা কম

আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সরবরাহ বেশি বেচা-কেনা কম

ঈদকে ঘিরে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট। হাটের দিনগুলোতে জয়পুরহাট জেলাসহ আশপাশের জেলা থেকেও কোরবানির পশু নিয়ে এ উপজেলার হাটগুলোতে আসছে কৃষক ও  ব্যাপারীরা। তবে হাটে বিপুল পরিমাণ গরুর সরবরাহ হলেও দাম গত বছরের তুলনায় একটু বেশি। আর দাম বেশি হওয়ায় বেচা-কেনা এখনো তেমন জমে ওঠেনি। সরেজমিনে গত শনিবার (৩ আগস্ট) উপজেলা সদর কলেজ বাজার হাট (আক্কেলপুর মুজিবর রহমান সরকারি কলেজ মাঠ) এবং রবিবার (৪ আগস্ট)  তিলকপুর পশুর হাট ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

গত শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলা সদর কলেজ বাজারের গরুর হাট থেকে তিনটি ষাঁড় গরু ভটভটিতে করে বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন উপজেলার গণিপুর গ্রামের আইয়ুব হোসেন ও অনন্তপুর গ্রামের  হাকিম মণ্ডল। তাঁরা দুজনই বিক্রেতা। তাঁরা জানান, হাটে গরু উঠলেও ক্রেতার সংখ্যা খুবই কম। তাই গরুর দাম ও চাহিদার মধ্যে সমন্বয় হচ্ছে না। এ জন্য তাঁরা গরু ফেরত নিয়ে যাচ্ছেন। তাঁদের দাবি, ঈদ আরো ঘনিয়ে এলে হয়তো কিছুটা দাম বাড়তে পারে। একই দিনে কলেজ বাজার হাট থেকে ৪৯ হাজার টাকা দিয়ে একটি গাভি কিনেছেন পৌরসভার হাস্তাবসন্তপুর গ্রামের মিজানুর রহমান, নাহিদুজ্জামান নাহিদ, ভুট্টু আহন্দ ও মিলন হোসেন। তাঁরা জানান, তাঁরা সাতভাগে গাভিটি কিনেছেন। তাই গরুর তুলনায় দাম বেশি। গত রবিবার তিলকপুর হাটে আনিছুর রহমান নামের এক ব্যাপারী একটি কালো রঙের ষাঁড় গরুহাটে নিয়ে আসেন। তিনি দাম ধরেন এক লাখ ২০ হাজার টাকা। এ সময় কয়েকজন ক্রেতা গরুটি কেনার জন্য দাম বললেও তা মনমতো না হওয়ায় তাঁরা ফেরত যাচ্ছিলেন। তখন কয়েকজন ক্রেতা জানাল, গত বছর এ রকম গরুর দাম ছিল ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকার মধ্যে। এ বছর অনেক বেশি দাম।

আক্কেলপুর কলেজ বাজার হাটের ইজারাদার বাবলু চৌধুরী বলেন, ‘গত শনিবার হাটে যে গরু আমদানি হয়েছে, এর চার ভাগের এক ভাগ গরুও বিক্রি হয়নি। গরুর দাম এবার বেশি হওয়ায় হাটে তেমন বেচা-কেনা হচ্ছে না। গ্রামে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে লোকজন গরু কিনছে।’

এ ব্যাপারে আক্কেলপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের ভেটেরিনারি সার্জন ডা. তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘এ বছর উপজেলায় প্রচুর গরু উৎপাদন হয়েছে। দাম একটু বেশি থাকায় খামারি ও কৃষকদের লাভ হবে। আর উপজেলার প্রতিটি হাটে গরু পরীক্ষার জন্য একাধিক মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। সেখানে বিনা মূল্যে পশু পরীক্ষা করা হবে।’

মন্তব্য