kalerkantho

পশুর হাট

রায়গঞ্জে অতিরিক্ত টোল আদায়, প্রশাসন নীরব

তাড়াশ-রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার সলঙ্গা পশুর হাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তিন থেকে চার গুণ আদায় করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পায়নি ভুক্তভোগীরা। সরেজমিনে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের সঙ্গে কথা বলে এ চিত্রের বাস্তবতা পাওয়া গেছে ।

রায়গঞ্জ উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় গুরুত্বপূর্ণ হাটের মধ্যে সলঙ্গা পশুর হাট অন্যতম। এক বছর মেয়াদে এক কোটি ১৮ লাখ টাকা রাজস্বে হাটটি ইজারা নেন লাবু তালুকদার। তিনি হাটের দায়িত্ব নেওয়ার পরপরই তাঁর নিজস্ব লোকজনকে দিয়ে ইচ্ছামতো টোল আদায় করতে থাকেন। এ কাজে তিনি কোনো চার্টও টাঙাননি। তা ছাড়া টোল আদায়ের রসিদও ব্যবহার করছেন না।

গত সোমবার উপজেলার সলঙ্গা হাট ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটা গরুর ক্রেতার কাছ থেকে ৬০০ টাকা আর বিক্রেতার কাছ থেকে ৩০০ টাকা আদায় করছেন। রসিদে শুধু পরিশোধ লিখে দেওয়া হচ্ছে, যা সম্পূর্ণ বেআইনি।

নিয়মানুযায়ী প্রতিটি গরু থেকে ২৫০ টাকা ও প্রতিটি ছাগল থেকে ৫০ টাকা হারে টোল আদায় করতে হবে। আর ক্রেতা কিংবা বিক্রেতার মধ্যে শুধু এক পক্ষের কাছ থেকে টোল আদায় করতে হবে। অতিরিক্ত টোল আদায় প্রসঙ্গে ইজারাদার লাবু তালুকদারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে সব ম্যানেজ করা হয়েছে। কোরবানির হাটে একটু বেশিই আদায় করা হচ্ছে।’

এ ব্যাপারে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের পক্ষ থেকে রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমুর রহমানকে জানানো হলে তিনি ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু দুপুর গড়িয়ে গেলেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। এরপর প্রতিকার পেতে ৯৯৯-এ ফোন দেওয়া হলে তারা দ্রুত সলঙ্গা থানাকে জানায়। এ সময় সলঙ্গা থানার এসআই মোস্তাফিজুর রহমান হাটে এসে সাংবাদিকদের বলেন, ‘কী সব ঝামেলা পাকান ভাই! আমি বিষয়টি দেখছি।’

মন্তব্য