kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

আক্কেলপুরে রাস্তা সংস্কারে অনিয়ম

আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি   

১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের শ্যামপুর গ্রামে কাবিখা প্রকল্পের আওতায় গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারকাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। তবে প্রকল্পটির সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম অনিয়মের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

এলাকাবাসী জানায়, গত কয়েক দিন ধরে ওই রাস্তা সংস্কারকাজ করছে শ্রমিকরা। কিন্তু তারা শুধু দুই ধারের ঘাস ও আগাছা পরিষ্কারের নামে মাটি কেটে রাস্তা সমতল করছে। আর দুই ধারের উঁচু ঘাসযুক্ত কাটা মাটি এনে রাস্তার মধ্যে ফেলে খানাখন্দ ঠিক করছে। কিন্তু এতে রাস্তা চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠছে। ঘাসযুক্ত মাটি ফেলায় রাস্তা পোক্ত হচ্ছে না। সামান্য বৃষ্টি হলেই প্রচুর কাদা হচ্ছে। এর ফলে ওই রাস্তা দিয়ে পায়ে হেঁটেও চলাচল করা সম্ভব হচ্ছে না।

সরেজমিনে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় শ্যামপুর গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে ১৫ জন শ্রমিক মাটি কাটার কাজ করছে। সাইদুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি কাজ দেখাশোনা করছেন। কয়েকজন শ্রমিক দুই ধারের ঘাস ও আগাছা পরিষ্কারের নামে রাস্তার মাটি কেটে ফেলছে। পরে ঘাসযুক্ত সেই মাটি রাস্তার মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারকাজের জন্য ছয় টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যার মূল্য ধরা হয়েছে এক লাখ ১৫ হাজার ২৬০ টাকা। আর নিয়ম অনুযায়ী শ্রমিক দিয়ে কাঁচা রাস্তাটিতে বাইরে থেকে মাটি এনে সংস্কার করতে হবে। প্রকল্পটির সভাপতি ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সিরাজুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ।

শ্রমিকদের সরদার সাইদুল ইসলাম বলেন, রাস্তার কাজ এখন চলমান। বর্তমানে রাস্তা লেভেল করা হচ্ছে। এর পরে আবারও মাটি দেওয়া হবে। কিন্তু গ্রামবাসী ও ভ্যানচালকরা কাজ করতে বাধা দিচ্ছে।

শ্যামপুর গ্রামের ভ্যানচালক শাহীন হোসেন বলেন, ‘মাটি কাটার আগেই আমাদের রাস্তা ভালো ছিল। শ্রমিকরা রাস্তার মাটি কেটেই রাস্তার উপরিভাগে দিচ্ছে। একটু বৃষ্টি হলেই আমরা এই রাস্তা দিয়ে আর ভ্যান চালাতে পারব না। যদি এক পাশ করে রাস্তা মেরামত করা হয় তাহলে আমাদের দুর্ভোগ অনেকটা কমবে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা