kalerkantho

রবিবার । ২১ জুলাই ২০১৯। ৬ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৭ জিলকদ ১৪৪০

দাফনের পর ফিরে এলেন গোলাপি!

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীর বাঘায় ভুট্টাক্ষেত থেকে উদ্ধারকৃত মুখে মবিল মাখানো সেই লাশ দাফনের এক দিন পর তাঁকে জীবিত পাওয়া গেছে। বুধবার সকাল ১০টার দিকে আড়ানী রেলস্টেশন থেকে জীবিত উদ্ধার করে তাঁকে আড়ানী ইউনিয়ন পরিষদে আনা হয়। পরে চেয়ারম্যান তাঁকে থানায় পাঠান। এদিকে চারঘাট উপজেলার চারাবটতলা এলাকার সুরুজ মিয়া নামের এক যুবক ছবি দেখে দাবি করছেন, ওই লাশ তাঁর স্ত্রী দোলেনা বেগমের।

জানা যায়, গত সোমবার সন্ধ্যায় বাঘা থানার পুলিশ চকবাউসা গ্রামের ভুট্টাক্ষেত থেকে মুখে পোড়া মবিল মাখানো অজ্ঞাতপরিচয় (৪৫) এক নারীর লাশ উদ্ধার করে। পরদিন জানা যায়, লাশটি উপজেলার আড়ানী পৌরসভার পাঁচপাড়া গ্রামের বাকপ্রতিবন্ধী মনির হোসেনের স্ত্রী গোলাপি বেগমের। স্বজনদের সম্মতিতে ময়নাতদন্তের পর লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। কিন্তু বুধবার সকাল ১০টায় আড়ানী রেলস্টেশন থেকে ধরে গোলাপিকে আড়ানী ইউনিয়ন পরিষদে আনা হয়। গোলাপি বেগমের মামা শাকিব হোসেন, শাশুড়ি মরিয়ম বেগম, ভাসুর মাজদার রহমান, জা সাজেদা বেগম চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে এসে গোলাপিকে শনাক্ত করেন। 

গোলাপি বলেন, ‘গত ২৭ মে রুস্তমপুর হাটে ৪২ হাজার টাকায় একটি গরু বিক্রি করি। এ টাকা নেওয়ার জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকজন চাপ দিতে থাকে। আমি নিরুপায় হয়ে পরদিন বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে বের হয়ে রাজশাহীর এক আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যাই। কিন্তু আমার সন্তানদের কথা ভেবে বুধবার সকালে রাজশাহী থেকে মহানন্দা ট্রেনে আড়ানী স্টেশনে আসি। এ সময় স্থানীয় কিছু মানুষ আমাকে চিনতে পেরে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসে।’

 

 

মন্তব্য