kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১২ রবিউস সানি     

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ

অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে জমি আত্মসাতের অভিযোগ

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিরাজগঞ্জের ছাতিয়ানতলী টেকনিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি জমি আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে জেলার তাড়াশ উপজেলার বস্তুল গ্রামে।

তাড়াশ উপজেলা ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, বারুহাস ইউনিয়নের বস্তুল ভূমি অফিসের জন্য ১৯৬৯ সালে এসএ রেকর্ডের মালিক মধু সরদার, যাদু সরদার, রমণী সরদার ও চন্দ্র সরদার ২৯ শতক জমি বস্তুল তহশিল অফিসের নামে দান করেন। পরবর্তী সময়ে ওই সম্পত্তি বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ডেপুটি কমিশনার সিরাজগঞ্জের নামে আরএস রেকর্ডে লিপিবদ্ধ হয়।

ওই সম্পত্তির ওপর স্থাপিত হয় বারুহাস ইউনিয়নের বস্তুল ভূমি অফিস।

সম্প্রতি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে সেখানে ভূমি অফিসের আধুনিক ভবন নির্মাণের কাজ হাতে নেয়। কিন্তু ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে গেলে অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলামের লোকজন বাধা দেয়।

তাড়াশে বর্তমানে কর্মরত সাবরেজিস্ট্রার ফারহানা আজিজ বলেন, জমি রেজিস্ট্রির ক্ষেত্রে সর্বশেষ রেকর্ড প্রযোজ্য। সেটি এ দলিলে যথাযথ অনুসরণ না করায় সরকারি স্বার্থের সঙ্গে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সরকারি সম্পত্তির ক্ষেত্রে এ ধরনের জালিয়াতির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া দরকার।

বারুহাস ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোক্তার হোসেন জানান, দলিল গ্রহীতারা একটি সংঘবদ্ধ জালিয়াতচক্রের সদস্য। তারা সরকারি সম্পত্তি জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাতের চেষ্টা চালাচ্ছে। এর প্রতিবাদে সম্প্রতি এলাকাবাসী মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে।

বারুহাস ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপসহকারী ভূমি কর্মকর্তা মো. মোস্তাগীর কবির বলেন, সরকারি সম্পত্তির স্বার্থের প্রতি অবস্থান নেওয়ায় শরিফুল ইসলাম তাঁর বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। বিষয়টি তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।

অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘এই জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলছে। এ কারণে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’

তাড়াশ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইফফাত জাহান বলেন, দলিল ও রেকর্ড অনুযায়ী এটি বারুহাস ইউনিয়নের বস্তুল ভূমি অফিসের নিজস্ব জায়গা। সবকিছু যাচাই-বাছাই করেই এখানে ভবন নির্মাণের জন্য টেন্ডারে দেওয়া হয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা