kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

গফরগাঁওয়ে লাইনে পাথর নেই, ঝুঁকি

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের গফরগাঁও স্টেশন এলাকায় পাথর না থাকা ও মরিচা ধরা ক্ষয়প্রাপ্ত লাইন দিয়ে ট্রেন চলাচল করায় লাইনচ্যুতিসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এর আগে স্টেশন-সংলগ্ন শিবগঞ্জ রেল পয়েন্টে একবার লাইনচ্যুতির ঘটনাও ঘটেছে। তখন থেকেই যাত্রীদের মধ্যে মারাত্মক আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। গত শনিবারও ১ নম্বর লাইনে ট্রেনের চাপে একটি রেল ভেঙে দ্বিখণ্ডিত হয়ে যায়। কিন্তু ভাঙা রেলের খণ্ডাংশ দুটি স্লিপার থেকে সরে না যাওয়ায় বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায় শত শত যাত্রীর প্রাণ।

গফরগাঁও রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা যায়, ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথে প্রতিদিন ১৪টি আন্ত নগর এক্সপ্রেস ও আটটি লোকাল ট্রেন চলাচল করে। স্টেশনের দুই দিকের আউটার সিগন্যালের মধ্যবর্তী দূরত্ব প্রায় আড়াই কিলোমিটার। কিন্তু এই আড়াই কিলোমিটার রেলপথে পাথর নেই বললেই চলে। ফলে মাটিতে স্লিপার ঢেকে গেছে। ট্রেন প্রবেশ করার পর থেকে দুই দিকেই রেললাইন দুলতে থাকে। এতে যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই রেলপথের লাইনগুলো লাগানো হয় ৫০-৬০ বছর আগে। দীর্ঘদিনের ব্যবহারে লাইনগুলো অত্যন্ত সরু ও মরিচা ধরে অনেক স্থানে ক্ষয় হয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে। তা ছাড়া গফরগাঁও এলাকায় বিগত রাজনৈতিক আন্দোলন, মারামারির সময় প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে লোকজন রেলের পাথর বস্তা ভরে নিয়ে যেত। কিন্তু এখন রেলের পাথর চুরি হয়ে যায়। অনেকে রাতের অন্ধকারে রেলের পাথর নিয়ে ইট-সুরকির সঙ্গে মিশিয়ে বিক্রি অথবা নির্মাণকাজে ব্যবহার করছে। ফলে রেললাইনে পাথর থাকছে না।

ট্রেনযাত্রী ফরিদ মিয়া বলেন, ‘ট্রেন গফরগাঁও আউটার সিগন্যালে প্রবেশ করার পর থেকেই মারাত্মকভাবে দুলতে থাকে। তখন অনেক যাত্রী ভয়ে থাকে।’

গফরগাঁও স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন মাস্টার আলাউদ্দিন বলেন, পাথরশূন্যতা, মেয়াদোত্তীর্ণ রেললাইন, পুরনো স্লিপার থাকায় যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

গফরগাঁও রেলওয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী (পথ) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কয়েক মাস আগেও দিনের বেলায় রেলের পাথর চুরি করার সময় এক ব্যক্তিকে হাতেনাতে ধরা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি। এ অবস্থার কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা