kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

প্রধানমন্ত্রীর দেখা চান ভাষাশহীদ জব্বারের ছেলে

নিজস্ব প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘সেই ২০০১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আমাদের দেখা হয়েছিল। আর দেখা হয়নি। ওনার সাথে আমরা দেখা করতে চাই। আমাদের আশা, বছরে অন্তত একবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের দেখা হোক।’

কথাগুলো বললেন ১৯৫২ সালের ভাষাশহীদ আব্দুল জব্বারের একমাত্র ছেলে নুরুল ইসলাম বাদল। এই মুক্তিযোদ্ধা বলেন, তিনি চান বছরে অন্তত একবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা হোক সব ভাষাশহীদের পরিবারেরই।

ভাষাশহীদ পরিবার হিসেবে বাংলা একাডেমির ভূমিকা নিয়েও কিছুটা ক্ষোভ ও কষ্টের কথা জানালেন নুরুল ইসলাম বাদল। তিনি বলেন, বাংলা একাডেমির কাছ থেকে তাঁরা সেভাবে আন্তরিকতাপূর্ণ ব্যবহার পান না। সে জন্য তাঁরা আশাহত।

নুরুল ইসলাম বাদলের বয়স এখন ৬৯ বছর। ১৯৫০ সালের ডিসেম্বরে তাঁর জন্ম ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে। ভাষা আন্দোলনে বাবার মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল মাত্র এক বছর তিন মাস।

যুবক বয়সে বাদল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। পরে তিনি চাকরি নেন সেনাবাহিনীতে। ২০০১ সালে যান অবসরে। বর্তমানে তিনি ঢাকার তেজকুনিপাড়ায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বসবাস করেন। সরকারি এই জমিতে ঘর নির্মাণ করে আছেন তিনি। দুই মেয়ে বিবাহিত। এক ছেলে তেজগাঁও কলেজে বিবিএসে পড়াশোনা করেন।

সম্প্রতি ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাবে এসেছিলেন বাদল। তিনি বলেন, ২০০০ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ হয়। একুশে পদক নেওয়ার সময় ২০০১ সালে আবার তাঁর সঙ্গে তাঁদের পরিবারের সাক্ষাৎ হয়। বাদল জানান, বর্তমানে ভাষাশহীদ পরিবারের সদস্য হিসেবে

মাসিক ১০ হাজার টাকা ভাতা পান তিনি। সব মিলিয়ে ভালোই আছেন। তবে বয়সের কারণে শারীরিক অসুস্থতায় ভোগেন মাঝেমধ্যে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা