kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১                     

খাল বেহাল

মির্জাপুরে উঠছে ভবন কালভার্ট

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মির্জাপুরে উঠছে ভবন কালভার্ট

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে সরকারি অনুমোদন ছাড়া ভুলোয়া খালে ইটভাটার মালিকরা প্রবাহ বন্ধ করে কালভার্ট ও গাইড ওয়াল নির্মাণ করেছে। ছবি : কালের কণ্ঠ

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে সরকারি অনুমোদন ছাড়া খালের মধ্যে কালভার্ট ও গাইড ওয়াল নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের ভুলোয়া খালে এ কালভার্ট ও গাইড ওয়াল নির্মাণ করা হয়েছে। ভুলোয়া ও চানপুর মৌজায় গড়ে ওঠা ইটভাটার মালিকরা খালের প্রবাহ বা গতিপথ বন্ধ করে এ কালভার্ট ও গাইড ওয়াল নির্মাণ করেছে বলে স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেছে।

এলাকাবাসী জানায়, খালটি আজগানা ইউনিয়নের ঘাঘড়াই কুড়াতলী থেকে শুরু হয়ে ভুলোয়া হয়ে বেলতৈল গ্রামের ভেতর দিয়ে বংশাই নদীতে মিলিত হয়েছে। এ খাল দিয়েই উপজেলার বাঁশতৈল ও আজগানা ইউনিয়নের বিভিন্ন বাইদ (নিচু) এলাকার পানি নিষ্কাশন হয়ে থাকে। যুগ যুগ ধরে এভাবেই ওই সব এলাকার ১৫ থেকে ২০টি গ্রামের পানি নিষ্কাশন হয়ে আসছে। কিন্তু এ বছর ওই খালের ভুলোয়া এলাকায় সরকারি অনুমতি ছাড়া প্রায় ছয় ফুট প্রশস্ত ও ২৫ ফুট লম্বা একটি কালভার্ট নির্মাণ করেছে ইটভাটা মালিকরা। বিনা অনুমতিতে সরকারি খালের ওপর কালভার্ট নির্মাণের ঘটনাটি এলাকাবাসীর মাধ্যমে মির্জাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আজগর হোসেন জানতে পেরে তিনি গত ৯ জানুয়ারি ঘটনাস্থলে গিয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের আটক করে নিয়ে আসেন। পরে আজগানা ইউনিয়ন পরিষদের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য শফিকুল ইসলাম ১৪ জানুয়ারির মধ্যে ওই কালভার্ট ভেঙে ফেলা হবে বলে মুচলেকা দিয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের ছড়িয়ে নেন। কিন্তু ওই কালভার্ট না ভেঙে গত মঙ্গলবার উল্টো কালভার্টের উভয় পাশে কমপক্ষে ২০ ফুট লম্বা ও ১০ ইঞ্চি পুরো গাইড ওয়াল নির্মাণ করেছেন তাঁরা। এতে ওই অঞ্চলের পানি নিষ্কাশন মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হবে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আজগর হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু দেখবেন।’

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা