kalerkantho

নাটোরে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

নাটোর প্রতিনিধি   

৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নাটোরে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিবুল হাসান জেমসের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, ট্রাক ছিনতাইসহ বিভিন্ন অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সদর উপজেলার একডালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রোজী বেগম। গতকাল শনিবার দুপুরে জেলা শহরের দক্ষিণ বড়গাছা এলাকায় ভাড়া বাসায় সম্মেলনটির আয়োজন করেন তিনি। এ সময় জীবনের নিরাপত্তা এবং অভিযুক্তদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার দাবি জানান রোজী।

সম্মেলনে রোজীর স্বামী ঠিকাদার মনিরুজ্জামান সেন্টু, বাবা শহিদুল্লাহ, মা সাবেক ইউপি সদস্য হাজেরা বেগমসহ ভুক্তভোগী অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ছাত্রলীগ নেতা জেমস ও তাঁর সহযোগীরা বিভিন্ন সময় রোজী এবং তাঁর স্বামী সেন্টুর কাছ থেকে প্রায় ৫০ লাখ টাকা চাঁদা নিয়েছেন। জেমসের বিচারের দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরতে গিয়ে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা থাকা অবস্থায় মৃত সন্তান প্রসব করেন রোজী। সর্বশেষ গত ৩ ডিসেম্বর জেমস ও তাঁর সহযোগীরা সেন্টুর ট্রাক ছিনতাই করেন। জেমসের গুলিতে রোজীর ভাতিজা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শাহরিয়ার হোসেন রিয়ন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে পিস্তল ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করলেও সেগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে বলে দাবি করে। আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদের ধরছে না। উল্টো আসামিরা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। এ ছাড়া রোজীদের কাছে ট্রাকটির সব বৈধ কাগজপত্র থাকলেও পুলিশ সেটি থানায় আটকে রেখেছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা জেমস বলেন, ‘আমি রোজী বেগম ও তাঁর স্বামীর কাছ থেকে ব্যাবসায়িক পার্টনার হিসেবে ২০ লাখ টাকা পাই। তাই ট্রাকটি নিয়েছিলাম।’ তাঁর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে বলে দাবি করেন জেমস। সদর থানার ওসি কাজী জালাল উদ্দিন বলেন, ‘আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপর আছে। ট্রাকটি যেহেতু মামলার সঙ্গে সম্পর্কিত তাই আটক করা হয়েছে। বাদী ইচ্ছা করলে আদালতের মাধ্যমে তাঁর জিম্মায় নেওয়ার আবেদন করতে পারেন। আর পরীক্ষা করে পিস্তল ও গুলি জেমসের হলে তাঁর বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করা হবে।’ পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন জানান, ‘জেমসকে গ্রেপ্তারে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উদ্ধার করা পিস্তল-গুলি জেমসের কি না তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা