kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দামুড়হুদা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র চালাচ্ছেন কম্পাউন্ডার

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রে চারটি পদের মধ্যে তিনটিই দীর্ঘদিন ধরে শূন্য রয়েছে। ফলে একজন কম্পাউন্ডার (চিকিৎসকের সহকারী) দিয়ে ধুঁকে ধুঁকে চলছে উন্নয়নকেন্দ্রের কার্যক্রম।

জানা গেছে, দামুড়হুদার দর্শনা সরকারি কলেজের পাশে এক একর জমির ওপর ১৯৬৮ সালে উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রটি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এলাকায় অনেক গরু-ছাগল ও পোলট্রি খামার রয়েছে। দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করতে বর্তমান সরকারও বিভিন্ন উপায়ে হাঁস-মুরগির খামার ও গবাদি পশুপালনে মানুষকে আগ্রহী করছে। অথচ প্রয়োজনীয় লোকবলের অভাবে উপজেলার প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রের কার্যক্রম ধীরে ধীরে স্থবির হয়ে পড়ছে। সুরম্য ভবন থাকা সত্ত্বেও এখানে কেউ চিকিৎসার কাজে আসছে না। সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটিতে ভেটেরিনারি সার্জন, এফইএআর (কৃত্রিম প্রজননকারী) ও ড্রেসার পদ তিনটি দীর্ঘদিন ধরে খালি পড়ে আছে। শুধু একজন কম্পাউন্ডার চালাচ্ছেন প্রতিষ্ঠানটি।

স্থানীয়রা জানায়, একসময় খামারিরা তাদের পশুর চিকিৎসা করাতে নিয়মিত উন্নয়নকেন্দ্রে যেত। যথাযথ চিকিৎসা না পেয়ে এখন তারা গ্রাম্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হচ্ছে। তা ছাড়া একসময় উন্নয়নকেন্দ্র থেকে সপ্তাহে এক দিন বিনা মূল্যে হাঁস-মুরগির ভ্যাকসিন দেওয়া হতো। ওই সময় দর্শনার পাশের এলাকায় অনেক হাঁস-মুরগি পালন করা হতো। বর্তমানে সেটা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষ বিপাকে পড়েছে।

বর্তমানে দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান ওই কেন্দ্রের ভেটেরিনারি সার্জন ও জয়নগর চেকপোস্ট কোয়ারেনটাইন স্টেশনের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় বিষয়টি উত্থাপন করেও কোনো লাভ হয়নি। তবে তাঁর পক্ষ থেকে প্রাণিসম্পদ উন্নয়নকেন্দ্রটি সচল রাখার চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা