kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

নারায়ণগঞ্জে ২ নৈশপ্রহরী খুন

বাদী পরিবর্তন দাবি

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় দুই নৈশপ্রহরীকে হত্যা করে তিন দোকানে ডাকাতির ঘটনায় করা মামলার বাদী পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছে নিহতদের পরিবার।

গতকাল বুধবার দুপুরে বন্দর প্রেস ক্লাবে নিহত নৈশপ্রহরী রায়হানউদ্দিনের পরিবারের পক্ষ থেকে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। উপস্থিত ছিলেন নিহত রায়হানউদ্দিনের স্ত্রী আমেনা আক্তার, মেয়ে রহিমা আক্তার, ইয়াসমীন আক্তার, বিলকিছ, মরিয়ম প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে নিহত রায়হানউদ্দিনের মেয়ে ইয়াসমীন আক্তার বলেন, মামলায় তাঁদের বাদী না করায় মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। যে বাজারের জন্য দুজন লোকের জীবন গেল, সেই বাজার কমিটি তাদের কোনো খোঁজখবর নিচ্ছে না। তাদের কোনো সাহায্যও করছে না। তাই প্রশাসনের কাছে তাদের দাবি, ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য যেন তাঁদের পরিবারের কাউকে মামলার বাদী করা হয়।

গত ২১ জুলাই রাত ২টার দিকে বন্দর উপজেলার দক্ষিণ লক্ষণখালা বাজারে একদল ডাকাত হানা দেয়। ডাকাতরা রায়হানউদ্দিন ও মোতালেব নামের দুই নৈশপ্রহরীকে নৃশংসভাবে হত্যা করে তিনটি ব্যাটারির দোকান থেকে ২৭ লাখ ৭৮ হাজার টাকার মালপত্র লুট করে। এ ঘটনার পরদিন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে বিছমিল্লাহ ব্যাটারির মালিক আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে বন্দর থানায় একটি ডাকাতি মামলা করেন। পরে সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ ডাকাতদের পরিচয় শনাক্ত করে। এরপর ৩০ জুলাই ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাত ডাকাত, পরে আরো এক ডাকাতকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত পিকআপ, যন্ত্রপাতিসহ লুট হওয়া ৭০ হাজার টাকা মূল্যের ব্যাটারি জব্দ করা হয়। গত ১ আগস্ট আটক ডাকাত রনি হোসেন, রানা ফকির, জাহিদুল শরীফ ওরফে তৌহিদুল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। অন্যদিকে গত ৬ আগস্ট ডাকাত মোক্তার হোসেন, জসিম ওরফে মুন্না, শাওন রানা, মহিন সিকদার ও লুট হওয়া সামগ্রীর ক্রেতা আতিকুর রহমান আদালতে জবানবন্দি দেয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা