kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

বাদীকে অর্থের প্রস্তাব

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

১ অক্টোবর, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার দক্ষিণচর আবাবিলের চরপক্ষী গ্রামের জিয়াউর রহমান জিয়া (২৬) হত্যা মামলার আসামিরা চার মাসেও গ্রেপ্তার হয়নি। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, আসামিরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ তাদের ধরছে না। তবে পুলিশ বলছে, আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এদিকে আসামিরা হত্যা মামলাটি প্রত্যাহার করতে বিভিন্ন মাধ্যমে জিয়ার পরিবারকে দুই লাখ টাকা দেওয়ার প্রলোভন দেখাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

এটি মেনে না নিলে পরিণতি ভালো হবে না বলেও তাদের ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে। এ নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে ওই পরিবারের সদস্যরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, উপজেলার চরপক্ষী গ্রামের দিনমজুর নুরুল ইসলামের ছেলে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে পাশের উদমারা গ্রামের এনামুলের ছেলে মো. সোহাগের শত্রুতা ছিল। এর জের ধরে গত ৪ মে কুপিয়ে জখম করে। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গত ৭ মে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় দুই দিন পর নিহতের বাবা বাদী হয়ে থানায় সোহাগকে প্রধান করে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। গতকাল বুধবার বিকেল পর্যন্ত মামলার কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার বাদী নুরুল ইসলাম জানান, প্রকাশ্যে তাঁর ছেলে জিয়াকে পিটিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় রাস্তার ওপর ফেলে রাখা হয়েছে। প্রতিবাদ করতে আসায় আরেক ছেলেকে কোপানো হয়েছে। এখন মামলা তুলে নিতে আসামিরা তাঁকে দুই লাখ টাকার দেওয়ার প্রলোভন দেখাচ্ছে। এটি মেনে না নিলে পরিণতি ভালো হবে না বলে হুমকি দিচ্ছে। আসামিদের গ্রেপ্তার, মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার ব্যাপারে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন তিনি। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হায়দরগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার করতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হয়েছে।

রায়পুর থানার ওসি মোহাম্মদ লোকমান হোসেন বলেন, 'হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রকৃত অপরাধীকেই গ্রেপ্তার করা হবে। নিরপরাধ কাউকে হয়রানি করা হবে না। নিহতের পরিবারকে টাকার প্রলোভন দেখানোর বিষয়টি আমার জানা নেই। '

 



সাতদিনের সেরা