kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভুল সবই ভুল

প্রিয়জন মারা গেলে শুধু মানুষই শোকাকুল হয়

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে সেগুলো মিথ্যা। লিখেছেন আসমা নুসরাত

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রিয়জন মারা গেলে শুধু মানুষই শোকাকুল হয়

প্রিয়জনের মৃত্যু সংবাদ পেলে মানুষ কষ্ট পায়। মৃত্যু মানে চিরতরে চলে যাওয়া—এই ভাবনা আবেগে আপ্লুত করে দেয়। অনেকের ধারণা, মৃত্যুর খবরে শুধু মানুষই শোকাকুল হয়। সত্যি হলো অনেক প্রাণীও প্রিয়জনের মৃত্যুতে বেদনাবোধ করে এবং নানা রকম ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া দেখায়। এদের মধ্যে শিম্পাঞ্জি আর হাতির কথা উল্লেখযোগ্য। শিম্পাঞ্জি মানুষের আত্মীয়সম প্রাণী। মানুষের মতোই তাদের কিছু আবেগ-অনুভূতি আছে। ডরোথির ঘটনাটা বললে কিছুটা বোঝা যাবে। ক্যামেরুনের সাঙ্গা-ইয়ং শিম্পাঞ্জি রেসকিউ সেন্টারে ৩০ বছর বয়সে সে মারা যায়। পরিবারে সে ছিল মধ্যমণি। মারা যাওয়ার পর তার পরিবারের সদস্যরা সব জড়ো হয়, সান্ত্বনা দেওয়ার ভঙ্গিতেই তারা একে অন্যের কাঁধে হাত রাখে। মনিকা সিজুপাইডার এই ঘটনার ছবি তুলেছিলেন। বলছিলেন, ‘তাদের আবেগ ছিল মারাত্মক। আমরাও তাদের কষ্ট দেখে দুঃখিত হয়ে পড়েছিলাম। কথা বলছিলাম না কেউ।’

হাতিও খুবই সংবেদনশীল। তারা সমাজবদ্ধ হয়ে বাস করে। হাতি গবেষক মার্টিন মেরিডিথ জানাচ্ছেন, পুরো পরিবার, এমনকি শিশু হাতিটিও মৃতকে দাঁড় করাতে চেষ্টা করে। মৃতের শরীরে তারা শুঁড় বুলিয়ে দেয়। একপর্যায়ে পাতা ও গাছের ডাল দিয়ে মৃতের শরীর ঢেকে দেয়। এ ছাড়া প্রিয়জনের মৃত্যুতে শোকগ্রস্ত হয় ডলফিন, দোয়েল পাখি ইত্যাদি। এদের প্রত্যেকেরই শোক জানানোর নিজস্ব ভাষা আছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা