kalerkantho

সোমবার । ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১১ রবিউস সানি ১৪৪১     

ভুল সবই ভুল

দক্ষিণ আফ্রিকা সবচেয়ে বেশি হীরা উৎপাদন করে

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে সেগুলো মিথ্যা। লিখেছেন আসমা নুসরাত

১২ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দক্ষিণ আফ্রিকা সবচেয়ে বেশি হীরা উৎপাদন করে

হীরার খনি আছে এমন দেশের সংখ্যা ২৩। এর মধ্যে ছয়টি দেশে (রাশিয়া, বতসোয়ানা, কানাডা, দক্ষিণ আফ্রিকা, অ্যাঙ্গোলা ও নামিবিয়া) বড় আকারের হীরা পাওয়া যায়। অন্য দেশগুলোয় মাঝারি ও ছোট আকারের হীরা মেলে। আর এসব দেশের মধ্যে রাশিয়া উৎপাদনের দিক থেকে সবার চেয়ে এগিয়ে। শুধু বড় আকারের নয়, গুণগত মানেও ভালো হীরা উৎপাদন করে রাশিয়া। মোট বৈশ্বিক উৎপাদনের ৩০ শতাংশ হীরা শুধু রাশিয়া জোগান দেয়। পৃথিবীর ৬০টি প্রধান হীরার খনির ১৭টিই রাশিয়ায়।

অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার অবস্থান ৪ নম্বরে। বতসোয়ানা আর কানাডারও পরে। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় হীরার সন্ধান মিলেছে রাশিয়া, বতসোয়ানা আর কানাডার অনেক আগে। রাশিয়ার হীরার খনির সন্ধান মিলেছে গেল শতকের পঞ্চাশের দশকে, বতসোয়ানায় ষাটের দশকে আর কানাডায় নব্বইয়ের দশকে। সেখানে দক্ষিণ আফ্রিকা ১৮৬৭ সালেই পৃথিবীকে হীরা দেখিয়েছে। গবেষকরা বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা আধুনিক হীরাশিল্পের জন্মভূমি। শুধু তাই নয়, কালিনানের (এখন পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় হীরা) মতো হীরাও পাওয়া গেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। তাই অনেকের ধারণা, দক্ষিণ আফ্রিকাই বুঝি বেশি হীরা উৎপাদন করে। কিন্তু সত্য হলো—এখন দক্ষিণ আফ্রিকার অনেক খনিতেই আর হীরা অবশিষ্ট নেই এবং নতুন খনির দেখাও মিলছে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা