kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১                     

ভুল সবই ভুল

খাঁটি মধুও ভালো থাকে না বেশিদিন

২৬ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খাঁটি মধুও ভালো থাকে না বেশিদিন

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে সেগুলো মিথ্যা। লিখেছেন আসমা নুসরাত

 

হ্যাঁ, মধুরও দিন ফুরায়, তবে ৩২ হাজার বছর লাগে মধুর দিন ফুরাতে। মিসরের পিরামিডে পাঁচ হাজার বছর আগের মধু পাওয়া গেছে, যা ঠিক প্রথম দিনের মতোই ভালো। মধু আসলে প্রাকৃতিকভাবেই জীবাণুরোধী। এর অর্থ খাঁটি মধুতে জীবাণু জন্মাতে পারে না। ফুল থেকে মধু সংগ্রহের পরপরই মৌমাছি তা চাকে জমা করে আর ডানা দিয়ে এর মধ্যকার পানি শুকিয়ে ফেলে। মৌচাকে যে গুনগুন শব্দ আমরা শুনতে পাই, তা ওই শুকানোর প্রক্রিয়ায়ই তৈরি হয়। শুকানো হয়ে গেলে চাকের মুখে তালা পড়ে যায়। তাই মধুর মধ্যে জীবাণু তৈরি হওয়ার কোনো উপকরণ অবশিষ্ট থাকে না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অবশ্য মধুর রং বদলাতে পারে; কিন্তু সেটাকে খারাপ মধু বলা যাবে না।

বিভ্রান্তিটা ছড়িয়েছে মধু বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো। তারা মধুর কৌটার গায়ে বেস্ট বিফোর বা এক্সপায়রি ডেট (মেয়াদ উত্তীর্ণের দিন) লিখে থাকে। এখানে তাদেরও দোষ বেশি নেই। কারণ আন্তর্জাতিক খাদ্য আইনে বলা হয়েছে—সব প্যাকেটজাত খাবারের গায়ে বেস্ট বিফোর অথবা এক্সপায়রি ডেট লিখতে হবে। অবশেষে এখন বলা যায়, সমাপ্তি দিন পেরিয়ে যাওয়ার পরও মধু খাওয়া যায় নির্দ্বিধায়। শর্ত এই মধুটা হতে হবে খাঁটি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা