kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শহীদ মুক্তিযোদ্ধার নামের সড়ক পাল্টে আরেকজনের নামে

পাবনা প্রতিনিধি   

৬ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নের তেঁতুলতলা থেকে মাধপুর পর্যন্ত সড়কটি ২০ বছর আগে সরকারিভাবে নামকরণ করা হয় ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তোজাম্মেল হক সড়ক’ নামে। সম্প্রতি স্থানীয় এক ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজশে সড়কটির নাম পরিবর্তন করে আব্দুস সাত্তার নামের প্রয়াত আরেক মুক্তিযোদ্ধার নামে করার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র অসন্তোষ ও ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তাঁরা বলছেন, সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুস সাত্তারও একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, কিন্তু একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার নামে হওয়া সড়কের নাম পরিবর্তন করা সঠিক সিদ্ধান্ত নয়।

বিজ্ঞাপন

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রাজশাহীর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির শিক্ষার্থী ছিলেন ঈশ্বরদীর দাশুড়িয়া ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের মৃত ময়েন উদ্দিন আহমেদের ছেলে তোজাম্মেল হক। ওই প্রতিষ্ঠানে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াকালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে শহীদ হন তিনিসহ প্রতিষ্ঠানটির তিন শিক্ষার্থী। তাঁদের ওই প্রতিষ্ঠানেই সমাহিত করা হয়। ২০০২ সালের ২০ মার্চ তৎকালীন ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দাশুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যানকে সড়কটি শহীদ তোজাম্মেল হকের নামে করার নির্দেশ দেন।

শহীদ তোজাম্মেল হকের ভাতিজা প্রকৌশলী ইমদাদুল হক বলেন, সরকারিভাবে সড়কটির নামকরণ অনুমোদন লাভের পর এলাকাবাসী ও পরিবারের চেষ্টায় সড়কের দুই প্রান্তে ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তোজাম্মেল হক সড়ক’ নামে দুটি নামফলক বসানো হয়। সম্প্রতি দাশুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজশে সেই নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। এটি আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানোর শামিল।

এ ব্যাপারে দাশুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান বকুল সরদার ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আমি মুক্তিযুদ্ধের বীরসেনানীদের কখনো ছোট করতে চাই না। এমনটা ঘটে থাকলে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। ’

ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পি এম ইমরুল কায়েস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। ওই ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তাঁর অজ্ঞতার কারণে এমনটি হয়েছে। তিনি দ্রুত বিষয়টির সমাধান করবেন বলে জানিয়েছেন। অন্যথায় তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

 

 



সাতদিনের সেরা