kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষ ভাঙচুর, আহত ২

রূপগঞ্জ

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৩ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ি, সংঘর্ষ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে দুজন আহত হয়েছে। এ সময় এক পক্ষ আরেক পক্ষের বাড়িঘরে হামলা করে ভাঙচুর চালিয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

বিজ্ঞাপন

গত শনিবার রাত ১০টার দিকে মুড়াপাড়া ইউনিয়নের মীরকুটিরছেও এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর থানার সয়সতী এলাকার মৃত চাঁন মিয়ার ছেলে ইসমাইল, করিমগঞ্জ উপজেলার কান্দারকামাটিয়া এলাকার জালাল মিয়ার ছেলে রাকিব ও শরিয়তপুর জেলার জাজিরা থানার সেনেরচর এলাকার শাহআলমের ছেলে সোহাগ মিয়া। তাঁরা সাবই রূপগঞ্জের কর্ণগোপ ও নাগেরবাগ এলাকায় বসবাস করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এলাকার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহরিয়ার পান্না সোহেল গ্রুপের সঙ্গে মাছিমপুর এলাকার ইউপি সদস্য তাওলাদ হোসেন গ্রুপের বিরোধ চলছিল। শনিবার রাতে কর্ণগোপ এলাকায় দুই পক্ষের যুবকদের মধ্যে বচসা হয়। এক পর্যায়ে তাওলাদ হোসেন গ্রুপের শাকিলকে ছুরিকাঘাত করে প্রতিপক্ষ। এ সময় শাকিলদের সঙ্গে থাকা প্রাইভেটকারও ভাঙচুর করা হয়।

এ খবর পেয়ে তাওলাদের লোকজন ভাইস চেয়ারম্যান সোহেলের লোকজনের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ি ও সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়। কুপিয়ে জখম করা হয় পাড়াইন এলাকার সোহেল গ্রুপের রবিনকেও। শাকিল ও রবিনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহরিয়ার পান্না সোহেল বলেন, ‘ঘটনার সূত্রপাত অন্য এলাকার লোকজনের সঙ্গে। সেখানে আমার কোনো লোক ছিল না। পূর্বপরিকল্পিতভাবে অফিসসহ আমার লোকজনের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর করেছে এবং কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। গুলি করে আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে তারা। ’

ইউপি সদস্য তাওলাদ অভিযোগ করে বলেন, ‘যে প্রাইভেটকারটি ভাঙচুর করা হয়েছে সেই গাড়িতে আমার থাকার কথা ছিল। পরিকল্পিতভাবে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এ হামলা চালায় ভাইস চেয়ারম্যান শাহরিয়ার পান্না সোহেলের লোকজন। ’

রূপগঞ্জ থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ বলেন, ‘আহত শাকিলের মা রেহানা বেগম বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। আমরা সে অভিযোগটি মামলা হিসেবে নিয়েছি। গ্রেপ্তারকৃত তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা