kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০২২ । ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সহপাঠীদের দাবি

ছন্দা আত্মহত্যা করার মতো মেয়ে নয়

রাজধানীর মানিকনগর থেকে ছন্দার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ও রাবি প্রতিনিধি   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী ছন্দা রায়ের ‘আত্মহত্যার সুষ্ঠু তদন্ত এবং দোষীদের বিচারের দাবি জানিয়েছেন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে ক্যাম্পাসের প্যারিস রোডে মানববন্ধন থেকে তাঁরা এই দাবি জানান।

কর্মসূচিতে বিভাগের অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, ‘ছন্দার বয়স আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো নয়। সে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্র্যাজুয়েশন করেছে।

বিজ্ঞাপন

তার অর্থনৈতিক অবস্থাও খুব একটা খারাপ ছিল না। এ অবস্থায় সদ্যোবিবাহিতা একটি মেয়ে কোনো অবস্থাতেই আত্মহত্যা করতে পারে না। এটাকে আত্মহত্যা আমরা বলতে পারি না। নিশ্চয়ই এর পেছনে অনেক গভীর কোনো ঘটনা লুকিয়ে আছে। ’

ছন্দা রায়ের সহপাঠী আরিফা আক্তার বলেন, ‘সে খুবই হাসিখুশি একটা মেয়ে ছিল। বিয়ের মাত্র আড়াই মাসে এমন একটা সিদ্ধান্ত নিল, তা আমাদের মানতে খুবই কষ্ট হচ্ছে। সে নিশ্চয়ই কোনো মানসিক কষ্টে ছিল, এ জন্য এত বড় একটা পদক্ষেপ নিয়েছে। কারো কাছে শেয়ারও করতে পারেনি বিষয়টা। তাই আমরা চাই যে বিষয়টার সুষ্ঠু তদন্ত হোক। ’

মানববন্ধনে ছন্দা রায়ের সহপাঠী জাবেদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে আরেক সহপাঠী আইরিন আক্তার বক্তব্য দেন। কর্মসূচিতে বিভাগের অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী ও সহপাঠী উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রাজধানীর মুগদা থানার মানিকনগরের বাসা থেকে পুলিশ ছন্দা রায়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ সেখান থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে। গত জুলাই মাসে বাংলাদেশ ব্যাংকের উপপরিচালক উত্তম কুমারের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়।

ছন্দার আত্মহত্যার বিষয়ে মুগদা থানার ওসি জামাল উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বড় বোন অপমৃত্যুর মামলা করেছে। তার স্বামীকেও প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছে বলেই মনে হচ্ছে। তবে তদন্ত চলছে। ’



সাতদিনের সেরা