kalerkantho

শনিবার । ২৬ নভেম্বর ২০২২ । ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

‘আমি তদন্ত চাই, বিচার চাই’

এস এম আজাদ   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘আমি তদন্ত চাই, বিচার চাই’

চুরির মামলায় গ্রেপ্তার স্বামীর জামিনের আশায় আদালতে গিয়েছিলেন সুমন শেখ ওরফে রুম্মনের (২৫) স্ত্রী জান্নাত আক্তার। সেখানে খবর আসে থানা হেফাজতে তাঁর স্বামী সুমন শেখ ‘আত্মহত্যা’ করেছেন। মেনে নিতে পারেননি তিনি।

সঙ্গে সঙ্গে জান্নাত ছুটে যান রাজধানীর হাতিরঝিল থানায়।

বিজ্ঞাপন

তদন্ত ও বিচারের দাবিতে অবস্থান নেন থানার সামনে। পরদিন তদন্ত ও বিচার চেয়ে মামলা করতে আদালতে ছুটে যান। মামলা করতে ব্যর্থ হয়ে স্বজনদের নিয়ে ফের সড়কে অবস্থান নেন। সেখানে বাধা দেয় একদল যুবক।

এর পরদিনও আদালতে মামলা করার চেষ্টা চালান সদ্য স্বামী হারানো তরুণী। ঘোষণা দেন, মামলা করেই স্বামীর লাশ গ্রহণ করে দাফন করবেন তিনি। তবে মামলা করতে পারেননি। পুলিশ নিহতের বাবার কাছে লাশ হস্তান্তর করে। দাফনের আগে শেষবারের মতো স্বামীকে দেখতে পারেননি জান্নাত।

১৯ আগস্ট রাতে হাতিরঝিল থানা হেফাজতে সুমনের মৃত্যু হয়। ঘটনার পর পুলিশ একটি সিসিটিভি ফুটেজ দেখিয়ে বলে, সুমন হাজতখানায় নিজের ট্রাউজার গলায় পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

সম্প্রতি রাজধানীর পশ্চিম রামপুরার ওয়াপদা রোডের ভাড়া বাসায় কথা হয় তাঁর সঙ্গে। জান্নাত জানান, সাত বছরের একমাত্র সন্তান রকিবকে নিয়ে চরম অনিশ্চয়তায় দিন কাটছে তাঁর। তাঁর ভাষ্য, ‘আদালত পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা নিতে চান না। উকিলরা লেখেন, কিন্তু ফোন গেলেই বন্ধ করে দেন। বলেন, মামলা হবে না। ’ কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আমি এখনো তদন্ত চাই। বিচার চাই। এখনো কিছু হয় নাই। আমাদের পাশেও কেউ নাই। ছেলেডারে নিয়া আমি কোথায় দাঁড়াইবো?’

সুমনের স্ত্রী জান্নাতসহ স্বজনরা বলছে, ‘চুরির অভিযোগে সুমন শেখকে গ্রেপ্তারের পর তাঁর ওপর নির্যাতন চালিয়ে ঘুষ দাবি করেন পুলিশ কর্মকর্তারা। ’

ঘটনার পর দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়। গঠন করা হয় তদন্ত কমিটি। কমিটির প্রধান ও পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) হাফিজ আল ফারুক বলেন, ‘তদন্ত শেষ হয়নি। কাজ চলছে। ’

সুমন শেখ পশ্চিম রামপুরার মেসার্স মাসুদ অ্যান্ড ব্রাদার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিপণনকর্মী ছিলেন।

সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে জান্নাত বলেন, ‘এখনো আমি থানায় যাই। তদন্ত চাই। বিচার চাই। সাহায্য চাই। ’

 

 



সাতদিনের সেরা