kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০২২ । ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শোক প্রস্তাবের আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী

ফজলে রাব্বী মিয়ার জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা ছিল অতুলনীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফজলে রাব্বী মিয়ার জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা ছিল অতুলনীয়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সদ্যঃপ্রয়াত জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার মৃত্যুতে জাতীয় সংসদে আনীত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সাতবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ছিলেন নিবেদিতপ্রাণ রাজনীতিবিদ। তাঁর জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা ছিল অতুলনীয়। তাঁর মৃত্যু আমাদের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। ’

গতকাল রবিবার বিকেলে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে শোক প্রস্তাবের ওপর আরো আলোচনায় অংশ নেন আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, শাহাজান খান, কামরুল ইসলাম, আ স ম ফিরোজ, মাহবুব আরা গিনি ও আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এবং বিরোধী দল জাতীয় পার্টির গোলাম মোহাম্মদ কাদের, মসিউর রহমান রাঙ্গা, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, কাজী ফিরোজ রশীদ।

বিজ্ঞাপন

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তিনি (ফজলে রাব্বী মিয়া) আমাদের ছাত্রলীগ, যুবলীগ করেছেন, আওয়ামী লীগ করেছেন। এরপর জাতীয় পার্টিতে গিয়েছিলেন। পুনরায় তিনি আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। পরে তাঁকে ডেপুটি স্পিকারের মর্যাদা দিয়েছিলাম। দল পরিবর্তনের পরও একটা এলাকা থেকে বারবার জিতে আসা—এটা মানুষের কাছে তাঁর গ্রহণযোগ্যতারই প্রমাণ। তিনি যে এলাকায় বারবার নির্বাচিত হয়েছেন, সেই এলাকাটা অবহেলিত ও মঙ্গাকবলিত ছিল। আমরা যখন ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসি তখন সেখানে যাতে পরিস্থিতির উন্নয়ন হয়, সে জন্য আমরা কাজ করেছি। ’

অধিবেশনে মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ছাড়াও সাবেক গণপরিষদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এম আবু ছালেহ, সাবেক সংসদ সদস্য আব্বাস আলী মণ্ডল, সাবেক সংসদ সদস্য করিম উদ্দিন ভরসা, সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শোয়েব ও সাবেক সংসদ সদস্য খোরশেদ আরা হকের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব আনা হয়।

এ ছাড়া স্বাধীনতা পদক একুশে পদকপ্রাপ্ত জাতীয় জাদুঘরের সাবেক মহাপরিচালক প্রফেসর এনামুল হক, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলম খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু মুসা চৌধুরী, সাবেক সচিব এ টি এম শামসুল হক, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মুকুল বোস, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ, কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরবিক্রম শতকত আলী সরকার, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. বদরুল হোসেন, রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুস সালেহীন, বরেণ্য অভিনেত্রী শর্মিলী আহমেদ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক অমিত হাবিবের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়।



সাতদিনের সেরা