kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০২২ । ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

দাওয়াই

ডায়াবেটিস হলে হাঁটতে হবে

ডায়াবেটিস হলো সারা জীবনের অসুখ। কিন্তু একে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে পরিপূর্ণ জীবন উপভোগ করা সম্ভব। ডায়াবেটিস সামলাতে হলে শরীরচর্চা চাই-ই চাই। ডায়াবেটিক রোগীদের হাঁটার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন অধ্যাপক ডা. শুভাগত চৌধুরী, সাবেক অধ্যক্ষ, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ

১৯ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডায়াবেটিস হলে হাঁটতে হবে

অধ্যাপক ডা. শুভাগত চৌধুরী

কেন হাঁটবেন

আমাদের দেশে ডায়বেটিস নিয়ে প্রথম যিনি ভাবেন বড় পরিসরে, তিনি হলেন জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ ইব্রাহিম। ডায়াবেটিস মোকাবেলার জন্য তাঁর সুবর্ণ সূত্র হলো তিনটি—ডায়েট, ড্রাগ ও ডিসিপ্লিন। ডায়াবেটিক রোগীদের শরীরচর্চা করার সুফল অনেক। বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীরচর্চার মধ্যে হাঁটা হলো শ্রেষ্ঠ ব্যায়াম।

বিজ্ঞাপন

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি এড়াতে চাইলেও হাঁটতে হবে। গবেষকরা দেখেছেন, সপ্তাহে ১৫০ মিনিট হাঁটলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ২৬ শতাংশ কমে।

 

হাঁটার সুফল

♦ মাংসপেশির জড়তা কমে

♦ শরীরে রক্ত চলাচল বাড়ে

♦ ইনসুলিন ভালো কাজ করে

♦ ইনসুলিনের নিঃসরণও বাড়ে

♦ রক্তে গ্লুকোজের মাত্রায় স্থিরতা আসে

♦ ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে

♦ রাতে ভালো ঘুম হয়

♦ হজম ভালো হয়

♦ স্ট্যামিনা বাড়ে

♦ হৃিপণ্ড থাকে সুস্থ ও সবল

♦ রক্তচাপ কমে

♦ বাড়তি ক্যালরি পোড়ে

 

কখন হাঁটবেন, কখন হাঁটবেন না

হাঁটবেন জোরে জোরে। অন্তত পাঁচ দিন আধঘণ্টা করে হাঁটবেন। সপ্তাহে ১৫০ মিনিট। তবে প্রতিদিন হাঁটলে আরো ভালো। রাতে খাওয়ার পর ১৫ মিনিট হাঁটলে রক্তের গ্লুকোজ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আসবে। দিনে একবারে ৩০ মিনিট হাঁটতে না পারলে ভাগ ভাগ করে দুইবার বা তিনবারে হাঁটতে পারেন। এতেও একই সুফল মিলবে। তবে মনে রাখবেন, খালি পেটে হাঁটা যাবে না। হাঁটা বাড়ালে ওষুধ সমন্বয় করতে হবে কি না তা ডাক্তারের কাছ থেকে জেনে নেবেন।

হাঁটার বড় সুবিধা হলো, এতে কোনো বাড়তি ঝামেলা নেই। যেখানে-সেখানে যখন-তখন বিনা খরচে হাঁটা যায়। তাই হাঁটা হোক জীবনাচরণ। আনন্দের।



সাতদিনের সেরা