kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০২২ । ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

কর্মগুণে জনগণের হৃদয়ে ছিলেন ফজলে রাব্বী

স্মরণসভা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কর্মগুণে জনগণের হৃদয়ে ছিলেন ফজলে রাব্বী

ফজলে রাব্বী মিয়া

প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ছাত্রজীবন থেকে দেশ ও জনগণের জন্য লড়াই শুরু করেছিলেন। কর্মজীবনে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। কর্মগুণে তিনি জনগণের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছিলেন। জনগণ শ্রদ্ধার সঙ্গে অনন্তকাল তাঁকে স্মরণ করবে।

বিজ্ঞাপন

গতকাল রবিবার শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাস ফজলে রাব্বী মিয়ার প্রয়াণে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। জাতীয় সংসদ ভবনের এলডি হলে এ অনুষ্ঠানে বক্তারা ওই সব মন্তব্য করেন। গত ২৩ জুলাই ভোররাতে ফজলে রাব্বী মিয়া যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

গতকালের ওই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংসদীয় ককাসের সভাপতি সংসদ সদস্য (এমপি) মো. শামসুল হক টুক। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী। এ সময় আরো বক্তব্য দেন সংসদের হুইপ মাহবুব আরা বেগম গিনি, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, রেজাউল করিম বাবলু, খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন, অপরাজিতা হক ও জাকিয়া তাবাসসুম, সংসদ সচিবালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম, সংসদ সচিবালয়ের পরিচালক (গণসংযোগ) লাবণ্য আহমেদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে চিফ হুইপ নুর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, ‘শোকের মাসে জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হারানোর শোকের সঙ্গে ফজলে রাব্বী মিয়াকে হারানোর শোক জাতিকে আরো বেদনাতুর করে তুলেছে। ফজলে রাব্বী মিয়ার মতো বিজ্ঞ সংসদ সদস্যকে হারিয়ে সেই শূন্যতা আরো বড় হলো। ’ 

হুইপ মাহবুব আরা গিনি বলেন, ‘জনগণের ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাই তাঁর জীবনে সবচেয়ে বড় অর্জন। যেকোনো দায়িত্ব পালনে তিনি আন্তরিক ছিলেন। ’

শামসুল হক টুকু বলেন, ‘ফজলে রাব্বী মিয়া সংসদীয় দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি শিশুদের আগামীর ভবিষ্যৎ গড়ে দেওয়ার জন্য শিশুর অধিকার নিয়ে সব সময় কাজ করেছেন। ’

অনুষ্ঠানের শুরুতে এক মিনিট নীরবতা পালনের মাধ্যমে ফজলে রাব্বীর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।



সাতদিনের সেরা