kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

তথ্য হালনাগাদে টাকা আদায়

ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তথ্য হালনাগাদে টাকা আদায়

ময়মনসিংহের ফুলপুরে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির তথ্য হালনাগাদ করতে কার্ড বাতিলসহ নানা ভয় দেখিয়ে উপকারভোগীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হচ্ছে। উপজেলার রুপসী ইউনিয়নের উদ্যোক্তা নিজাম উদ্দিন আকন্দের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। তথ্য হালনাগাদের জন্য জনপ্রতি ১০০ থেকে ২০০ টাকা করে নিচ্ছেন তিনি। এই অনিয়মের প্রতিবাদ করলে লাঞ্ছনারও শিকার হতে হচ্ছে উপকারভোগীদের।

বিজ্ঞাপন

ভুক্তভোগী কার্ডধারীরা জানান, নতুন করে অনলাইনে তথ্য হালনাগাদ করতে ১০০ থেকে ২০০ টাকা প্রতি কার্ডের জন্য নেওয়া হচ্ছে। টাকা না দিলে কার্ড বাতিলের ভয় দেখানো হচ্ছে। ফলে টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা। ইউনিয়নসংলগ্ন স্থানে এমন অনিয়ম চললেও কেউ প্রতিবাদ করছে না। ফলে উদ্যোক্তা নিজাম উদ্দিন অপরাধ করেও সহজেই পার হয়ে যাচ্ছেন। পাঁচ-ছয় বছর ধরে অসহায় পরিবারকে জিম্মি করে অনলাইন সেবাদানের নামে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত উদ্যোক্তা নিজাম উদ্দিন আকন্দ রুপসী ইউনিয়নের বাঁশাটি গ্রামের ইমান আলীর ছেলে।

গতকাল রবিবার সকালে রুপসী ইউনিয়নে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইউনয়নের পাশেই নিজাম উদ্দিনের কার্যালয়। একটি বেসরকারি ব্যাংকের এজেন্ট ও ওই ইউনিয়নের উদ্যোক্তা তিনি। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, জন্ম নিবন্ধনসহ বিভিন্ন কাজের জন্য তাঁর কাছ থেকে অনলাইন সেবা নিতে হয়। গতকাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির জন্য অনলাইনে তথ্য আপডেট কার্যক্রম চালু হয়েছে। এই কার্যক্রমের আওতায় রুপসী ইউনিয়নের দুই হাজার ৫০০ অসহায় পরিবার ১০ টাকা কেজি দরে চাল কেনার সুযোগ পাবে; কিন্তু নিজাম উদ্দিন প্রতিটি কার্ডের জন্য ১০০ থেকে ২০০ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ সময় কার্ডধারীরা প্রতিবাদ করলে তাঁদের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন নিজাম উদ্দিন। এমনকি যাঁরা টাকা দেবেন না তাঁদের কার্ড বাতিলেরও হুমকি দেন।

এ ব্যাপারে কার্ডধারী ইউনিয়নের রেজাউল করিম আকন্দ (৫২), দুলাল মিয়া (৪০), জমিলা খাতুন (৩২), খোদেজা খাতুন (৫০), হাসনা বেগম (৪৩) বলেন, তাঁদের ১০০ থেকে ২০০ টাকা দিয়ে অনলাইনে ফরম পূরণ করতে হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উদ্যোক্তা নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘২০০ টাকা নয়, ১০০ টাকা করে নিচ্ছি। আমাদের খাদ্য অফিস থেকে কোনো টাকা-পয়সা দেয় না। এ কারণে কিছু খরচ নিতে হচ্ছে। ’

রুপসী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মিনহাজ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির সঠিক তথ্য অনলাইনে আপডেট করতে কোনো টাকা-পয়সার লেনদেন সম্পূর্ণভাবে নিষেধ করছেন তাঁরা। ’

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সোহেল রানা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির তথ্য অনলাইনে আপডেটের জন্য কোনো প্রকার টাকা-পয়সা নিতে নিষেধ করা হয়েছে উদ্যোক্তাদের। কারণ এ কাজের জন্য তাঁদের ভাতা দেওয়া হবে। উদ্যোক্তা নিজাম উদ্দিনের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’



সাতদিনের সেরা