kalerkantho

শুক্রবার । ৭ অক্টোবর ২০২২ । ২২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

শিশু পার্কে বড়দের মাদকের আসর

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিশু পার্কে বড়দের মাদকের আসর

মানিকগঞ্জ শহরের মুক্তিযোদ্ধা শিশু পার্কের ভাস্কর্যগুলো লতাপাতায় ঢেকে গেছে। ছবি : কালের কণ্ঠ

মানিকগঞ্জ শহরের মুক্তিযোদ্ধা শিশু পার্ক অবহেলা ও অব্যবস্থাপনায় পরিণত হয়েছে জঙ্গলে। এখানে এখন বড়রা আড্ডা দেয় এবং মাদকাসক্তরা আসর বসায়।

গতকাল রবিবার সকাল ১১টায় সরেজমিনে দেখা গেছে, পুরো পার্ক জংলা লতাপাতায় ছেয়ে আছে। জঙ্গলে ঢাকা পড়েছে ইলেকট্রনিক রেললাইন, দোলনা, স্লিপার, বাঘ, গণ্ডার, ভালুক, জিরাফ, হরিণ, পরিসহ ১৪টি ভাস্কর্য।

বিজ্ঞাপন

এর বেশির ভাগ ভেঙে পড়েছে। ওয়াকওয়ের পাশে বসার স্থানগুলোতে আড্ডা দিতে দেখা গেল বড়দের। গোল চত্বরে বসার স্থানে দেখা গেল বেশ কয়েকজন নারী-পুরুষকে উচ্চৈঃস্বরে তর্কাতর্কি করতে। কথা বলে জানা গেল, তাঁরা মামলার কাজে আদালতে এসেছেন। পার্কের উত্তর দিকে বসার স্থানেও দেখা গেল কয়েকজনকে আলাপ করতে। তাঁরা জানালেন, পার্কের পাশে জেলা রেজিস্ট্রি অফিসে কাজে এসেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মানিকগঞ্জবাসীর দাবির মুখে ২০০৭ সালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহরে সরকারি জমিতে শিশু পার্কটি স্থাপিত হয়। রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয় মানিকগঞ্জ পৌরসভাকে। পার্কটির গা ঘেঁষে দক্ষিণ দিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, পূর্ব দিকে মানিকগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ১ নম্বর ভবন, পশ্চিম দিকে মসজিদ, দলিল লেখক সমিতি ও জেলা রেজিস্ট্রি অফিস। উত্তর দিকে রয়েছে শহীদ রফিক সড়ক। শিশু পার্কটি কার্যত জেলার বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পরিবেষ্টিত।

শুরুর দিকে শিশুদের আনন্দের জন্য সে রকম কোনো ব্যবস্থা ছিল না। ২০১৭ সালে তৎকালীন পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিমের উদ্যোগে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে পাওয়া ২০ লাখ টাকা অনুদানে পার্কটির উন্নয়ন করা হয়। রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পৌরসভা থেকে তিন শিফটে তিনজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়; কিন্তু সাত-আট মাস ধরে পৌরসভা রক্ষণাবেক্ষণে নিয়োজিত কর্মচারীদের সরিয়ে নেয়।

মানিকগঞ্জ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘শিশু পার্কটির এই দুরবস্থা আমাদের আহত করে। ’

মানিকগঞ্জের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খন্দকার খালেকুজ্জামান বলেন, ‘জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ, পৌরসভা, শিশু সংগঠন, মুক্তিযোদ্ধা ও নাগরিকদের নিয়ে একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করে এই শিশু পার্কটি পরিচালনার দায়িত্ব দিতে হবে। ’

পার্কের দুরবস্থার কথা স্বীকার করে মানিকগঞ্জ পৌর মেয়র রমজান আলী বলেন, ‘দ্রুত এর সংস্কারের ব্যবস্থা করা হবে। ’

মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আবদুল লতিফ বলেন, ‘সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে শিশু পার্কটির উন্নয়নে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’



সাতদিনের সেরা